দাবি আদায়ে নতুন জোট করেছে শিক্ষকদের ১৫টি সংগঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৪:১৬ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ১২:২০ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার

শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতির জন্য শিক্ষকদের দাবি পুরণ করা প্রয়োজন। নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশে রাজনৈতিক দলের জোট হয়েছে। এবার শিক্ষকরাও জোট থেকে বাদ পড়তে চান না। তাই তারা দাবি আদায়ে নতুন জোট গঠন করেছেন। শিক্ষকদের ১৫টি সংগঠনকে নিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে জাতীয়করণ করাসহ ২০ দফা দাবিতে ‘বাংলাদেশ শিক্ষক সমন্বয় পরিষদ’ নামে একটি জোট গঠন করেছেন তারা।

বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টস ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ জোটের ঘোষণা দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সারা দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক পরিবর্তন ও শিক্ষকদের যৌক্তিক দাবি আদায়ে বাংলাদেশ শিক্ষক সমন্বয় পরিষদ নামের এ সংগঠন করা হয়েছে। এখানে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১৫টি শিক্ষক সংগঠন রয়েছে। সংগঠনটির প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।

শিক্ষক নেতারা বলেন, শিক্ষ ব্যবস্থা তথা শিক্ষকদের সমস্যা নিরসন না হলে সমাজের অবকাঠামোর গলদ ও অসঙ্গতি দূর করা সম্ভব না। তাই শিক্ষকদের মৌলিক দাবি আদায়ে মুক্তিযুদ্ধের ও স্বাধীনতা সংগ্রামের মৌলিক নীতি আদর্শের আলোকে দেশের সব স্থরের শিক্ষকদের নিয়ে গঠন করা হয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমন্বয় পরিষদ। শিক্ষকদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের দাবিতে আন্দোলন সফল করতে এ সমন্বয় পরিষদ কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

শিক্ষকরা বলেন, এটি নির্বাচনের বছর। তাই এখন বড় কোনো আন্দোলনে যাবেন না তারা। জানুয়ারিতে নতুন সরকার গঠন হবে। আগামী ফেব্রুয়ারি থেকে শিক্ষকদের ২০ দফা দাবি আদায়ে বৃহৎ আন্দোলনের ঘোষণা দেবেন তারা।

শিক্ষকদের ২০ দফা দাবির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- শিক্ষা ব্যবস্থাকে জাতীয়করণ, ইউনেস্কো এবং আইএলওর সুপারিশমালা বাস্তবায়ন, শিক্ষানীতি ২০১০ পূণাঙ্গ বাস্তবায়ন, সব ধরনের শিক্ষক নিয়োগে স্বতন্ত্র সার্ভিস কমিশন গঠন ও বেতন স্কেলে প্রদান, সব স্তরে অবসরের বয়স ৬৫ বছর করা, বাসস্থানের ব্যবস্থা করা, সরকার প্রতিশ্রুত ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ও বৈশাখী ভাতা চলতি বছরের জুলাই থেকে কার্যকর করা ও বছরের একটি দিন ‘শিক্ষক দিবস’ ঘোষণা করা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান ও তেজগাঁও কলেজের অধ্যক্ষ মো. আবদুর রশীদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সমন্বয়কারী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।