পাঠদান বন্ধ থাকলেও অফিস খোলা রাখতে পারবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৯:০২ পিএম, ১ জুন ২০২০ সোমবার | আপডেট: ০৭:২৬ এএম, ২ জুন ২০২০ মঙ্গলবার


মহামারি করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও প্রশাসনিক কর্মকাণ্ডের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অফিস খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, “করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধ এবং পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তবে সীমিত আকারে সরকারি দপ্তর খোলা রয়েছে।

“এ প্রেক্ষাপটে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস শুধুমাত্র প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজনে (যথা ছাত্রভর্তি, বিজ্ঞানাগার, পাঠাগার, যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি) সীমিত আকারে খোলা রাখা যাবে।”

অফিস খোলা থাকলেও অসুস্থ শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী, সন্তান সম্ভবা নারী এবং ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সব সময় মাস্ক পরে এবং স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জারিকৃত সব স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতেও নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। সীমিত পরিসরে অফিস চালু হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধই থাকবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে না বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন।

কওমি মাদ্রাসার অফিস খোলারও অনুমতি


সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো কওমি মাদ্রাসার অফিস খোলা রাখার অনুমতিও দিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

প্রতি বছর রমজান মাসের পরই কওমি মাদ্রাসাগুলোতে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি শুরু হয়। এবছর করোনাভাইরাস বিস্তার ঠেকাতে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

তবে সীমিত পরিসরে অফিস ও গণপরিবহন চলাচল শুরুর পর সোমবার ইসলামিক ফাউন্ডেশন কওমি মাদ্রাগুলোর অফিস খোলার অনুমতি দেয়।

ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “এ বছর ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির কার্যক্রম অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে অফিস খোলার অনুমতি প্রদানের জন্য কওমি মাদরাসাসমূহের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করা হয়।

“প্রতিমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদরাসাসমূহে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির বিষয়টি আন্তরিকতার সাথে অনুধাবন করে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অফিস খোলা রাখার সানুগ্রহ অনুমতি প্রদান করেছেন।”

ই্সলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু ভর্তির কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য অফিস খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।”

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সারাদেশে ১৪ থেকে ১৫ হাজার কওমি মাদ্রাসা রয়েছে। এস/টি