অনলাইনে পরীক্ষা ও ভর্তি বন্ধে নির্দেশ ইউজিসির

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৩:৪৮ পিএম, ৭ এপ্রিল ২০২০ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৯:১৯ পিএম, ৭ এপ্রিল ২০২০ মঙ্গলবার

করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ থাকা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনলাইনে ক্লাস নিতে উৎসাহ জোগালেও অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। এমনকি অনলাইনে শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম না চালাতেও বলা হয়েছে। গতকাল সোমবার ইউজিসির জনসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ আপত্তি জানানো হয়।

সম্প্রতি রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রামের অন্য একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে অনলাইনে পরীক্ষা নিয়ে চলতি সেমিস্টারে শিক্ষার্থী পাস করানোর চেষ্টার অভিযোগ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এমনকি গ্রেডিং ছাড়াই পরের সেমিস্টারে শিক্ষার্থীদের উন্নীত করারও অভিযোগ উঠেছে। এর আগে ২৪ মার্চ ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে (ইউজিসি) অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়ার জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে উৎসাহিত করা হয়। এরপর বেশ কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে ক্লাস নিতে শুরু করে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি), সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, নর্দান ইউনিভার্সিটি, এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটি, ইস্ট-ডেল্টা ইউনিভার্সিটি এবং প্রাইম এশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

তবে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার সুবিধার আড়ালে কিছু বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে পরীক্ষা নিতেও শুরু করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আর এতেই আপত্তি জানিয়েছে ইউজিসি। তারা অনলাইনে পরীক্ষা ও ভর্তি নেওয়ার কার্যক্রম বন্ধের জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নির্দেশ দিয়েছে।

ইউজিসির জনসংযোগ ও তথ্য অধিকার বিভাগের পরিচালক ড. শামসুল আরেফিনের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে করোনাভাইরাসকালীন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া, মূল্যায়ন ও ভর্তির কার্যক্রম বন্ধ রাখতে ইউজিসির নির্দেশের কথা জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইউজিসি গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছে, কিছু কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ইউজিসির পরামর্শ অমান্য করে অনলাইনে পরীক্ষা গ্রহণ ও মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এমনকি দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে কিছু কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সামার সেমিস্টারে ভর্তি কার্যক্রম শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ ধরনের কার্যক্রম কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। সেমিস্টার ফাইনাল ছাড়া গ্রেড প্রদান, মূল্যায়ন এবং কোনো ধরনের পরীক্ষা ছাড়াই স্নাতক প্রথম বর্ষে শিক্ষার্থী ভর্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, যা নৈতিকতার বিচারে ঠিক নয়। ইউজিসির সাম্প্রতিক অফিস আদেশে এ ধরনের কার্যকলাপের কথা কোথাও উল্লেখ করা হয়নি। গুটিকয়েক বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এসব বিশ্ববিদ্যালয়কে অনতিবিলম্বে এ ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রাখার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

ইউজিসির বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলা এবং ব্যাপক বিস্তার রোধে সরকার দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির মেয়াদ আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও সরকারের নির্দেশনা মেনে চলার জন্য উচ্চশিক্ষা পরিবারের সবাইকে অনুরোধ জানানো হলো।


এডুকেশন বাংলা/এজেড