মুজিববর্ষ:ইবতেদায়ি শিক্ষকরা চায় জাতীয়করণ 

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ১১:৩৬ এএম, ১৭ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার | আপডেট: ১১:৪৭ এএম, ১৭ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার

মুজিববর্ষে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণ ও বেতন পরিশোধ, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ও শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দেয়া সহ ৭ দফা দাবি রয়েছে বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির। বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি কাজী ফয়জুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে মাদ্রাসা শিক্ষকরা সব সময় সহযোগিতা করে যাচ্ছে। এ সরকার শিক্ষকবান্ধব সরকার। আশা করি, মুজিববর্ষেই তিনি শিক্ষকদের দাবি মেনে নেবেন। দাবি মানা না হলে টানা রাজপথে অবস্থান করার হুমকি দেন এ শিক্ষক নেতা।

উল্লেখ্য, ১৯৮৪ সালে সরকারি এক সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক শিক্ষা বিস্তারের জন্য দেশে বেসরকারি বিদ্যালয় ও ইবতেদায়ি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা শুরু হয়। এর মধ্যে ২৬ হাজার ১৯৩ প্রাথমিক বিদ্যালয় ২০১৩ সালে জাতীয়করণ হয়েছে। এর আগে এগুলো ধাপে ধাপে জাতীয় বেতন স্কেলের অধীনে আসে। কিন্তু একই সময়ে অভিন্ন আইনের বলে প্রতিষ্ঠা সত্ত্বেও উপেক্ষিত থাকে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি (যা পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত) মাদ্রাসা। তারা মাত্র ৫শ’ টাকা করে মাসোহারা পেয়ে আসছিলেন।

এমন অবস্থায় ২০১০ সালে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কপাল খোলে। প্রথমে মাসোহারা ১ হাজার টাকা করা হয়। পরে দ্বিতীয় দফায় তা বাড়িয়ে দেড় হাজার টাকা করা হয়। এরপর তৃতীয় দফায় সহকারী শিক্ষকদের (মৌলভী) সম্মানী ২৩শ’ আর প্রধান শিক্ষকদের ২৫শ’ টাকা করা হয়।

এমন পরিস্থিতিতে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের প্রত্যাশা আরও বেড়ে যায়। স্কুলের মতো মাদ্রাসাও জাতীয়করণের জন্য তারা দাবি তোলেন। দাবি আদায়ে সর্বশেষ গত বছরের এপ্রিলে আন্দোলনে নামেন তারা। শিক্ষামন্ত্রী তখন প্রেস ক্লাবের সামনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা রেখে ঘরে ফিরে যেতে শিক্ষকদের আহ্বান জানান।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী বলেন, সারা দেশে মাদ্রাসা বোর্ড থেকে নিবন্ধিত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার সংখ্যা ১৮ হাজার ১৯৪টি। এর মধ্যে চালু আছে ১০ হাজারের মতো। এসব মাদ্রাসায় শিক্ষক আছেন প্রায় ৫০ হাজার। সরকারকে সবার দায়িত্ব নিতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ১৯৮৪ সালে ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষা শুরু হয়। প্রথমে বিনা বেতনে মাদরাসার কার্যক্রম চালু করা হয়। মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের তথ্যানুযায়ী ৬৯৯৮টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা রয়েছে। সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত মাদরাসার সংখ্যা ১৫১৯টি। এসব মাদরাসায় ৫১ হাজার ৯৯৭ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে ১৫ হাজার ২৪৩ জন শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন। শিক্ষক নেতাদের দাবি, এর বাইরেও আরও অনেক মাদরাসা রয়েছে। যেসব মাদরাসার কোড ও ইআইআইএন নম্বর নেই।

শিক্ষকরা জানান, ১৯৮৪ সালে ৭৮ অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে স্বতন্ত্র মাদরাসা নিবন্ধন শুরু হয়। তখন থেকেই স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকরা সরকারের নিয়মনীতি অনুযায়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো শিক্ষার্থীদের বিনা বেতনে পাঠদান করে আসছেন। একই কারিকুলামে পাঠদান করা হয়। পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষায় এসব মাদরাসার শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতোই সরকারের সব কাজে অংশ নেন তারা।

এডুকেশন বাংলা/এজেড