'মামলার কার্যক্রম শেষ হলে প্রধান শিক্ষকদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত'

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৬:০৩ পিএম, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ সোমবার

সর্বশেষ নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন ২ ধরনের সহকারী শিক্ষকদের বেতনের গ্রেড হবে ১৩তম।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হলেও প্রধান শিক্ষকদের বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘদিন ধরেই সহকারী শিক্ষকদের বেতন ১১তম গ্রেডে করা এবং প্রধান শিক্ষকদের বেতনের গ্রেড ১০ম গ্রেডে করার দাবি জানিয়ে আসছিলেন শিক্ষকরা।

এমতাবস্থায় প্রধান শিক্ষকদের বিষয়ে কি সিদ্ধান্ত নেয়া হবে সে বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, প্রধান শিক্ষকদের বেতন নিয়ে উচ্চ আদালতের একটি মামলা চলমান। সে জন্যই প্রধান শিক্ষকদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া যায়নি।
মামলার কার্যক্রম শেষ হলে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।
এদিকে নতুন এ প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ১৩তম গ্রেডে শুরুতে একজন শিক্ষকের মূল বেতন হবে ১১ হাজার টাকা এবং এ গ্রেডে সর্বোচ্চ বেতন হবে ২৬ হাজার ৫৯০ টাকা।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত বছরের ৭ নভেম্বর অর্থ বিভাগের সম্মতিক্রমে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মাঠপর্যায়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল ১৪ থেকে ১৩তম গ্রেডে উন্নীতকরণ করা হলো।
এতে আরো বলা হয়, নির্দেশনার ফলে এখন থেকে সহকারী শিক্ষকরা যোগদানের পরই ১৩তম গ্রেডে বেতন-ভাতা সুবিধা পাবেন। আগে এ স্তরের শিক্ষকরা ১৫তম গ্রেডে যোগদান করতেন। তারা তখন ৯ হাজার ৭০০ টাকা-ভাতা পেতেন। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হওয়ার পর ১৪তম গ্রেড উন্নীত হয়ে ১০ হাজার ২০০ টাকা বেতন পেতেন।

নির্দেশনায় বলা হয়, নতুন বেতন গ্রেড যোগ্যতা-অভিজ্ঞতা অনুযায়ী কার্যকর করা হবে। এ বিষয়ে বিদ্যমান সকল বিধি-বিধান ও আনুষ্ঠানিকতা যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। এ-সংক্রান্ত ব্যয় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বেতন-ভাতা খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে সমন্বয় করা হবে।

এডুকেশন বাংলা/এজেড