স্বেচ্ছাসেবকের বেশে কুবি ছাত্রলীগ

সজীব বণিক,কুবি

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৮:৪০ পিএম, ৯ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার | আপডেট: ০৫:৩০ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৯ রবিবার

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে ছাত্রলীগের বিভিন্ন সহযোগীতার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ভর্তিচ্ছু ও অভিভাবকেরা। ভর্তি পরীক্ষার জন্যে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ৮ ও ৯ নভেম্বর বিভিন্ন ইউনিট ও ভর্তিপরীক্ষার আগের দিন-রাত স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করেছেন। ফলে কোনো প্রকার ভোগান্তিতে পড়তে হয়নি ভর্তিচ্ছু ও অভিভাবকদের। পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, শুক্রবার (৮ নভেম্বর) ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিট ও শনিবার (৯ নভেম্বর) ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় গেইট সংলগ্ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র রাখার ব্যবস্থা, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, মেডিকেল সেন্টার, শরবতের ব্যবস্থা, জয় বাংলা বাইক সার্ভিসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পৌঁছে দেয়া,যারা ছবি নিয়ে আসেনি নিজ খরচে তাদের ছবি প্রিন্ট এবং রাতে হলে থাকার ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন সেবা দেয় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, যেসকল ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী পরীক্ষার আগের দিন ক্যাম্পাসে এসেছেন তাদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা করার পাশাপাশি হলে অবস্থানকারী ভর্তি পরীক্ষার্থীদের সার্বিক সহযোগিতায় প্রতিটি হলে ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবক টিম সর্বোচ্চ সেবা দিয়েছে।

ভর্তি পরীক্ষার দিন ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের পাশে ভর্তি পরীক্ষাদের যে কোনো দিক নির্দেশনা প্রদানের জন্য হেল্প-ডেস্ক ব্যবস্থা করা হয়। এছাড়া ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবক টিম ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সুপেয় পানির ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন কাজ করেন।

ক্যাম্পাস সংলগ্ন ছাত্রলীগের এমন সেবা পেয়ে ফরিদপুর থেকে আগত জামাল ভূইয়া নামের এক অভিভাবক এডুকেশন বাংলাকে জানান,কোনো প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি দেখিনি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠন ভর্তিচ্ছু ও অভিভাবকদের যেভাবে সহযোগীতা ও সৌজন্যমূলক আচরণ করেছে তাতে আমি মুগ্ধ হয়েছি।

অন্যদিকে ময়মনসিংহ থেকে এক মেয়েকে ভর্তি পরীক্ষা দিতে নিয়ে আসা সুপ্তা বিশ্বাস এডুকেশন বাংলাকে বলেন, আমার মেয়ের পরীক্ষা ছিল আজ (৯নভেম্বর)। আমরা প্রধান ফটকের সামনে ছাত্রলীগের বুথক্যাম্পের দিকে বসে ছিলাম। হঠাৎ কয়েকজন ছেলে (ছাত্রলীগ কর্মী) আমাদেরকে সুপেয় পানিসহ কোনো সমস্যা হচ্ছে কিনা তা জানতে চান। তাদের এমন খোঁজখবর নেয়ার ব্যাপার খুব ভালো লেগেছে বলে জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম মাজেদ ভর্তি পরীক্ষার সেবা সম্পর্কে এডুকেশন বাংলাকে বলেন,আমরা প্রতিবছর ভর্তি পরীক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে সহযোগীতা করে থাকি। এবারের প্রস্তুতিটা ছিল আরো বেশী জোরালো। যার ফলে ভর্তিচ্ছুরা কোনো প্রকার ভোগান্তিতে না পড়ে পরীক্ষা দিতে পেরেছে। এবারের ভর্তি পরীক্ষায় সুষ্ঠু ও শান্তি পরিবেশ নিশ্চিতে যারা ছাত্রলীগের হয়ে স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করেছে তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এডুকেশন/এসবি/কেআর