প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকেই প্রাথমিক শিক্ষকদের সমস্যার সমাধান

শীর্ষ ঠাকুর

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৪:১৫ পিএম, ১ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই দিতে পারবেন সমাধান।অন্য কারো পক্ষে এ সমস্যার সমাধান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। ইতিমধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মনজুর কাদেরের সঙ্গে শিক্ষক নেতাদের দীর্ঘ সময় বৈঠক হয়েছে। এমনকি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সঙ্গেও বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে মহাপরিচালক মনজুর কাদের শিক্ষকদের দাবিকে যৌক্তিক বলে উল্লেখ করেছেন।


এডুকেশন বাংলায় প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী মহাপরিচালক মনজুর কাদের শিক্ষক নেতাদের বলেছেন, আপনাদের দাবি যৌক্তিক। আমরা আবারও প্রধান শিক্ষকদের গ্রেড ১০ এবং সহকারী শিক্ষকদের গ্রেড ১১ করে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠাবো। মহাসমাবেশে অংশ নেওয়া হাজার হাজার শিক্ষককে যে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে সে বিষয়টিও বিবেচনা করা হবে বলে শিক্ষক নেতাদের আশ্বস্ত করেন মহাপরিচালক।


মনজুর কাদের আরও বলেন, আাগামী সপ্তাহে শিক্ষক নেতাদের নিয়ে আবারও বসবো। দরকার হলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে প্রাথমিক শিক্ষকদের মিটিংয়ের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে বলেও তিনি জানান।
মনজুর কাদেরের বক্তব্যে আশার আলো থাকলেও নেই কোনো সমাধান। কবে নাগাদ প্রাধান শিক্ষকদের ১০ ও সহকারী শিক্ষকদের ১১ গ্রেডের সুপারিশ করা হবে তার নেই কোনো সুনিশ্চিত সমাধান। তাই শিক্ষক নেতারা তার আশ্বাসে আশান্বিত হতে পারেননি।


এরইমধ্যে আশার আলো জাগে যখন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক বসবেন বলে জানান। অবশেষে তিনি বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) রাতে বৈঠকও করলেন। শিক্ষক নেতারা আশা করিছিলেন প্রতিমন্ত্রী কোনো সমাধান দিবেন। কিন্তু তিনিও সমাধান দিতে পারলেন না। তবে শিক্ষক নেতারা বলছেন আশার কথা হলো প্রতিমন্ত্রী শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ করিয়ে দিবেন।


এডুকেশন বাংলার সংবাদ অনুযায়ী জানা যায় প্রতিমন্ত্রী শিক্ষক নেতাদের আশ্বস্ত করে বলেছেন, দাবি আদায়ে প্রাথমিক শিক্ষকরা যে আন্দোলন করেছেন তা সফল হয়েছে। শিক্ষকদের এ আন্দোলন প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ১৩ নভেম্বরের আগেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষক নেতাদের সাক্ষাৎ করিয়ে দেবেন। তিনি বলেছেন, শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ওয়াকিবহাল আছেন।
এদিকে এডুকেশন বাংলার খবর অনুযায়ী প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেড এবং সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডের দাবি তাদের পক্ষে এখনই পূরণ করা সম্ভব নয়। এর আগে প্রধান শিক্ষকদের জন্য দশম গ্রেড এবং সহকারী শিক্ষকদের জন্য ১২তম গ্রেডের প্রস্তাব করা হয়েছিল অর্থ মন্ত্রণালয়ে; কিন্তু সেই প্রস্তাবে সম্মতি মেলেনি। তাই অর্থ মন্ত্রণালয়ে নতুন প্রস্তাব পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।


শিক্ষক নেতারা বলছেন, আমরা আমাদের দাবিতে অটল। প্রতিমন্ত্রী এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বৈঠকে আশার মতো কিছুই ছিল না। তবে একটাই আশা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক। শিক্ষক নেতারা দৃঢ়ভাবে আশা ব্যক্ত করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীই পারেন তাদের মস্যার সমাধান দিতে।


এ বিষয় এডুকেশন বাংলাকে শুক্রবার (১ নভেম্বর) বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের প্রধান মুখপাত্র মো. বদরুল আলম বলেছেন, আমাদেরকে মহাসমাবেশ করতে দেওয়া হয়নি। পুলিশ আমাদের লাঠিচার্জ করেছে। শিক্ষরা আহত হয়েছে। মূলত শিক্ষকরা নয়; জাতি আহত হয়েছে। আমরা আমাদের ক্ষোভের কথা প্রতিমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তিনি পুলিশের আচরণে দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বদরুল আলম আরো বলেন, প্রতিমন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন ১৩ নভেম্বরের আগে শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ করিয়ে দিবেন। আমরা মনে করি, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাই পারে আমাদের এই গ্রেড বৈষম্য নিরসন করতে। পারে শিক্ষকদের কষ্ট দূর করতে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী মনবতার মা। আমাদের মা, মা সন্তানদের দুঃখ লাঘব করবেন এটা আশা করি। আমরা তাঁর প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড ও প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেডে বেতনের কাছে দীর্ঘদিনের দাবির কথা তুলে ধরব। তিনি অবশ্যই সমাধান দিবেন।

এডুেকশন বাংলা/