টাকার লোভে স্ত্রীর ঘরে বন্ধুকে ঢুকিয়ে দিয়েছে স্বামী, ধর্ষণের পরেও

নিজস্ব প্রতিবেদক

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৭:৫৬ পিএম, ২০ জুলাই ২০১৯ শনিবার | আপডেট: ০৭:৫৭ পিএম, ২০ জুলাই ২০১৯ শনিবার

যৌতুকের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে স্ত্রীর ওপর শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন স্বামী। যৌতুক না পেয়ে বন্ধুর কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাকে স্ত্রীর ঘরে ঢুকিয়ে দিয়েছেন এক স্বামী।

ওই নারীর অভিযোগ, রাতভর তাকে ধর্ষণ করেছে স্বামীর বন্ধু। গত বুধবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দেগঙ্গার চাকলা গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত বল্লভপুর ঘোষপাড়া এলাকায়। অভিযুক্ত ধীরাজ সরকার ওই নারীর স্বামী এবং স্বামীর বন্ধুর নাম রেজ্জাক মন্ডল ওরফে রেজাউল বলে জানা গেছে।

ওই নারীর বাবার বাড়ি বাদুড়িয়া থানার তারাগুনিয়া এলাকায়। আট বছর আগে দেগঙ্গার বল্লভপুরের ধিরাজ সরকারের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তাদের দু`জন মেয়েও রয়েছে।

ওই নারীর অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে নির্মমভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেন স্বামী ধীরাজ সরকার। অবশেষে রাতের বেলা রেজ্জাক ওরফে রেজাউল মন্ডল নামে এক বন্ধুকে বাড়িতে নিয়ে আসেন তার স্বামী। তারপর ওই নারী ঘরে বন্ধুকে নিয়ে শুয়ে পড়েন স্বামী ধীরাজ। রাত ১০টা নাগাদ অভিযুক্ত রেজ্জাক ওরফে রেজাউল ওই গৃহবধূর হাত পা মুখ বেঁধে রাতভর লাগাতার ধর্ষণ করেন।

নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে গৃহবধূ তার স্বামীকে জানান। পরে জানতে পারেন, স্বামী টাকার বিনিময় তাকে ধর্ষণ করিয়েছেন। অভিযুক্ত স্বামী এ ঘটনায় নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেন। অবশেষে গৃহবধূ তার বাপের বাড়িতে খবর দেন।

খবর পেয়ে নির্যাতিতার বাবা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দেগঙ্গা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী ধীরাজ সরকারকে গ্রেপ্তার করে। তবে অভিযুক্ত রাজ্জাক মন্ডল ঘটনার পর থেকে পলাতক। তার খোঁজে তল্লাশি করছে দেগঙ্গা পুলিশ।

পুলিশ বলচে, আটক স্বামীকে বারাসাত মহকুমা আদালতে পাঠানো হবে। তারপর তদন্ত চলবে।

এডুকেশন বাংলা/একে