যে কারণে মেধাবীরা শিক্ষকতা পেশা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে

মো. নজরুল ইসলাম রনি

এডুকেশন বাংলা

প্রকাশিত : ০৮:৫৩ এএম, ৯ জুলাই ২০১৯ মঙ্গলবার

শিক্ষকদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা ছাড়াই তাদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ৪% কর্তন কোন দিন শিক্ষক সমাজ মেনে নিবে না।সামনে ঈদুল আজহা।২৫% ঈদবোনাস দিয়ে শিক্ষকরা ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারেনা।১০০০ টাকা বাড়ি ভাড়া এবং চিকিত্সা ভাতা মাত্র ৫০০টাকা। দ্রব্যমূল্যের আকাশ ছোঁয়া দামের এই বাজারে শিক্ষকরা আজ পরাজিত সৈনিক।মেধাবীরা শিক্ষকতা পেশা থেকে ক্রমশ মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।

শিক্ষকদের উচচতর গ্রেড এবং বদলি এখনো হিমাগারে।শিক্ষাকে ধবংসের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে এবং এজন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেই নিতে হবে।শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূর করতে শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের কোন বিকল্প নেই।শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয় ফেরত নিয়ে জাতীয় করণের পদক্ষেপ নিলে সরকারের রাজস্বের তেমন কোন প্রকার ঘাটতি হবে না।

এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বোঝানোর চেষ্টা করছি। শীঘ্রই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে আনুষ্ঠানিক সাক্ষাত্কারের সর্বোচচ চেষ্টা করছি।

আগামী ১২জুলাই জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সকাল সাড়ে দশটায় মানব বন্ধন কর্মসূচীতে সবাইকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ করছি।

সভাপতি
বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ও মুখপাত্র
এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ লিয়াজোঁ ফোরাম।

এডুকেশন বাংলা/এজেড