রবিবার ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৫:১৭ পিএম

Sonargaon University Dhaka Bangladesh
University of Global Village (UGV)

'১-১৪তম শিক্ষক নিবন্ধিতদের বয়স ৩৫ করা হবে না'

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৩:৫৪, ২৯ এপ্রিল ২০১৮   আপডেট: ২২:৫১, ৩০ এপ্রিল ২০১৮

১-১৪ তম শিক্ষক নিবন্ধিতদের বয়স ৩৫ করা হবে না। আমি আমার পরিচিত অনেক থানা একাডেমিক সুপারভাইজার, সহকারী পরিদর্শক  এবং গবেষনা কর্মকর্তা এছাড়া বর্তমানে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিকট মুঠোফোনে যোগাযোগ করে ইতিমধ্যে অবগত হয়েছি যে, ১-১২তম শুধু নয় এমনকি ১৩তম এবং ১৪তম নিবন্ধিতদের হতেও পঁয়ত্রিশ কার্যকর করা হচ্ছে না। তার বিভিন্ন কারন নিম্নে উপস্থাপন করা হল।

০১। এন্টিআরসিএর একটি আইন ২০০৫ সালের এবং দুটি সংশোধিত বিধিমালা একটি ২০০৬  আর অপরটি ২০১৫ এর কোথাও বয়সের কোন উল্লেখ না থাকায়। ২০১৮ সালে আইন  করে ২০০৫-২০১৫ সালের ভুক্তভোগীদের বিচার করা যাবে না।

০২। বাংলাদেশের সংবিধানের তৃতীয় ভাগে মৌলিক অধিকারের ৩৫ (১) উপধারায় স্পষ্ট উল্লেখ আছে যে, অপরাধের দায়যুক্ত কার্য সংঘটনকালে বলবৎ ছিল, এইরুপ আইন  ভঙ্গ করিবার অপরাধ ব্যতীত কোন ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করা যাইবে না এবং অপরাধ সংঘটনকালে বলবৎ সেই আইনবলে যে দন্ড দেওয়া যাইতে পারিত, তাঁহাকে তাহার অধিক বা তাহা হইতে ভিন্ন কোন দন্ড দেওয়া যাইবে না। একই ধারার ৩৫ (২) উপধারায় বলা আছে, এক অপরাধের জন্য কোন ব্যক্তিকে একাধিক বার ফৌজদারীতে সোপর্দ ও দন্ডিত করা
যাইবে না।

০৩। ১-১৪ কোন পরিপত্রেই অথবা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির কোথাও বয়সের কথা উল্লেখ ছিল না।

০৪। ১-১২ তম নিবন্ধন পরীক্ষা হয়েছে কমপক্ষে আজ হতে চার/পাঁচ বছর পুর্বে। সুতরাং ঐ সময়ের অধিকাংশ নিবন্ধিতদের বয়স কম-পক্ষে ৩২ হতে এমনকি ৪৫ বছর। সুতরাং পূর্বের আইনের সুযোগ ব্যতিরেকে নতুন আইনে তাদের বিচার অযৌক্তিক।

০৫। ১৩ তম এবং ১৪ পরিক্ষায় ইতিমধ্যে যাদেরকে উত্তীর্ণ দেখানো হয়েছে। তাদের অনেকেরই বয়স ৩৫ এর উর্ধ্বে। সুতরাং তাদের কোন
প্রকার সুযোগ না রেখে হঠাৎ করে কোন প্রকার আইন কারো প্রতি চাপিয়ে দেওয়া সম্পূর্নরুপে সংবিধান বহির্ভূত।

০৬। এন্ট্রি লেভেল বলতে যারা নতুনভাবে শুধুমাত্র আবেদন করতে পারবেন তাদেরকে বুঝানো হয়েছে। সুতরাং নতুন কোন আইন শিক্ষক
নিবন্ধন বিধিমালা ২০১৫ এরপর নতুনভাবে ২০১৬ সালে তৈরি করলে উহা কোনক্রমেই
২০১৫ সালের পূর্বের সনদপ্রাপ্তদের উপর বলবৎ বা কার্যকর করা যাইবে না।

০৭। ইতিমধ্যে মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট হতে কোন এক মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রায় এসেছে যে, নিবন্ধন সনদের মেয়াদ আজীবন। যেখানে সনদের
মেয়াদ আজীবন সেখানে উক্ত সনদগুলির বয়সের সীমারেখা বেঁধে দেওয়া বরং হাস্যকর বিষয় ব্যতীত আর কিছুই নয়।

বিঃদ্রঃ এন্টিআরসিএ এবং শিক্ষামন্ত্রনালয় চেয়েছিল ১-১৪তমদের বয়সের বেড়াজাল দেখিয়ে পূর্বের সকল সনদধারীদের হতে ৩৫বছর বয়সীদের বাদ দিতে। কিন্তু গণসচেতনতাও পুনরায় মামলার আশংকায় তারা ইতিমধ্যে তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে। এবং বয়সের বিষয়টি এন্ট্রি লেভেলে মানে ১৫তম
নিবন্ধন পরিক্ষা হতে কার্যকর করার নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়।


বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধিত নিয়োগ বঞ্চিত জাতীয় ঐক্য পরিষদের প্রচার সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান জীবন-এর ফেসবুক থেকে নেয়া।

 

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর