বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৮:১০ পিএম


'সরকারের নথিপত্র একাধিক জায়গায় সংরক্ষণ করতে হবে'

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:৪৫, ৪ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১০:৫৭, ৪ নভেম্বর ২০১৮

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান বলেছেন, সরকারের নথিপত্র একাধিক জায়গায় সংরক্ষণ করতে হবে। কারণ ইতিহাস-ঐতিহ্য সংরক্ষণের পাশাপাশি জাতীয় প্রয়োজনে যে কোনো সময় রেকর্ড প্রয়োজন হয়।

৩ নভেম্বর শনিবার বিকেলে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর ও বাংলাদেশ আরকাইভস ম্যানেজমেন্ট সোসাইটির (বারমস) আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি। রাজধানী ঢাকার জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনের ‘বাংলাদেশের আরকাইভস: অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক এই অনুষ্ঠানে সাবেক আমলা ও গবেষক ড. আকবর আলি খান আরো বলেন, এরশাদ আমলে স্বয়ং রাষ্ট্রপ্রধানের নির্দেশে সবিচালয়ের অনেক নথি ফেলে দেয়া হয়েছে। সেই কারণে অনেক মূল্যবান তথ্য হারিয়ে গেছে। নথিপত্রের প্রয়োজনীয়তা সবাইকে উপলব্ধি করতে হবে। এর প্রয়োজনীয়তা সবাইকে জানতে হবে।

নথিপত্র সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা দিকটি তুলে ধরে এই চিন্তাবিদ বলেন, বিশ্বব্যাংকে কাজ করার সময় দেখেছি, টুইন টাওয়ার হামলার পর বিশ্বব্যাংকে তাদের সব রেকর্ড প্রধান কার্যালয়ের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের অন্য একটি অঙ্গরাজ্যে সংরক্ষণ শুরু করে। যার কথা অনেকটাই গোপন রাখা হয়। এভাবে তারা বিকল্প আরকাইভস গড়ে তুলেছে। যাতে প্রধান কার্যালয় আক্রান্ত হলে পরে বিকল্প তথ্যভান্ডার থাকে।

অনুষ্ঠানে দেশের আরকাইভসের অগ্রগতির জন্য এ বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করতে একটি সমঝোতা স্মারক সাক্ষরিত হয়। যার অংশীজন হচ্ছে বারমস; ইনফোফোর্ট লিমিটেড (ঢাকা) এবং আরকাইভস অ্যান্ড রেকর্ডস ম্যানেজমেন্ট- নেদার‌ল্যান্ডস।

স্কাইপের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সরাসরি নেদারল্যান্ডস থেকে সরাসরি অংশ বাংলাদেশের আরকাইভসের দুই শুভাকাঙ্ক্ষী ডাচ আরকিভিস্ট ফ্লোরাস খেজার ও আরকিভিস্ট সিগফ্রিড তানজিং। আরকাইভস অ্যান্ড রেকর্ডস ম্যানেজমেন্ট-নেদার‌ল্যান্ডসের প্রতিনিধিত্ব করেন তারা।

আলোচনা অনুষ্ঠান ও সমঝোতা স্মারক সাক্ষরের এ আয়োজনে সভাপতিত্ব করেন বারমসের সভাপতি ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. শরীফ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতের জন্য রেকর্ডপত্র সংরক্ষণ করা জরুরী। এই কাজে তাই দেশে-বিদেশে দক্ষ জনবলের চাহিদা বাড়ছে। এটা মাথায় রেখেই বারমস আরকাইভস বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়তে উদ্যোগ নিয়েছে। এ বিষয়টিতে দারুণ এক অগ্রগতি হলো এ আয়োজনে।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বারমসের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ ও ইনফোফোর্ট লিমিটেডের (ঢাকা) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এম এইচ খসরু। এ আয়োজনে `রেকর্ড ম্যানেজমেন্টস: আরকাইভস, ল অ্যান্ড এডুকেশন‘ শীর্ষক প্রবন্ধ পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যবিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মেজবাহ-উল ইসলাম। এ নিয়ে আলোচনা করেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের একই বিভাগের বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী মোস্তাক গাউসুল হক।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় আরকাইভস ও গ্রন্থাগার অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) দিলীপ কুমার সাহা। তিনি বলেন, দক্ষ আরকিভিস্ট তৈরির জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা জরুরী। এ বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স বা আরো কোনো উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থা করতে সময় বেশি লাগবে। তাই দ্রুত তারা সার্টিফিকেট কোর্স চালু করা হবে। পরে ধাপে ধাপে আরকাইভসের উপর উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থা করা হবে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন আরকিভিস্ট ও গবেষক মো. লুৎফল হক এবং আরকাইভস কর্মী ইলিয়াস হোসেন।


এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর