শনিবার ২০ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:২৭ এএম

Sonargaon University Dhaka Bangladesh
University of Global Village (UGV)

'প্রতিটি জেলায় ১টি করে মেডিকেল কলেজ করতে চাই'

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:১৮, ৮ অক্টোবর ২০১৮  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের অত্যন্ত পুরাতন জরাজীর্ণ অবস্থা। সেখানে শত বছরের পুরাতন ভবনও রয়েছে যদিও কেউ কেউ সেগুলোকে হেরিটেজ বলে। তবে, সেই হেরিটেজ মাথায় ভেঙ্গে পড়লে প্রাণহানি ঘটতে পারে বলে আশংকা ব্যক্ত করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা একটি নতুন প্লান তৈরি করেছি একটি অত্যন্ত আধুনিক মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতাল সেখানে আমরা নির্মাণ করে দেব। ইতোমধ্যেই দ্বিতীয় ইউনিট করে এর শয্যা সংখ্যা ৮শ’ থেকে বাড়িয়ে ১৩শ’ করা হয়েছে এবং নতুন হাসপাতাল করা হলে এই শয্যাসংখ্যা আরো বৃদ্ধি করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার (৭ অক্টোবর) বিকেলে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে বাংলাদেশ মেডিকেল এসেসিয়েশন (বিএমএ) ‘চিকিৎসক সম্মেলন-২০১৮’তে প্রদত্ত ভাষণে এ কথা বলেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বিএমএ মহাসচিবকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় পতাকা এবং সংগঠনের পতাকা উত্তোলন করে চিকিৎসক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। এ সময় জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। পরে তিনি শান্তির প্রতীক পায়রা ওড়ান।

প্রধানমন্ত্রী সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে স্মরনীকারও মোড়ক উন্মোচন করেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে মোট মেডিকেল কলেজের সংখ্যা ১১১টি। যার মধ্যে সরকারি ৪২টি এবং বেসরকারি ৬৯টি।

তিনি বলেন, তাঁর সরকার প্রতিটি জেলায় ১টি করে মেডিকেল কলেজ তৈরি করতে চায়। যাতে করে নতুন চিকিৎসকের সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি জেলার জনগণ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা সেবা গ্রহণের সুযোগ পান। রাজশাহী ও চট্টগ্রামে নতুন দু’টি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় চালু করার জন্য উপাচার্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া সিলেটে আরও একটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি বিভাগে ১টি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে।

সরকারি ও বেসরকারি মিলে ২৮টি ডেন্টাল কলেজ স্থাপন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট অব ট্রমাটোলজি এন্ড রিহ্যাবিলেশন (নিটোর) এর শয্যা সংখ্যা ৫০০ থেকে উন্নীত করে ১ হাজার করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ১২ হাজার ৮৪৬ জন চিকিৎসক, ৫ হাজারেরও বেশি নতুন নার্স নিয়োগ দিয়েছে। স্পেশাল বিসিএস এর মাধ্যমে আরও ৬ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হওয়ার পথে। স্বাস্থ্যসেবাকে মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্য নিয়েই তাঁর সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, সংক্রামক ও অসংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ অনেক সাফল্য অর্জন করেছে। ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশকে পোলিওমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আমরা ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিকভাবে ভ্যাক্সিন এন্ড ইমুনাইজেশন অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছি।

তিনি বলেন, আমরা ২০১১ সালে জাতীয় স্বাস্থ্য নীতি প্রণয়ন করি। ‘জাতীয় ঔষধনীতি, ২০১৬’ ‘মানব দেহে অঙ্গ প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন, ২০১৮’- সহ নানাবিধ আইন কাঠামো প্রণয়ন করা হয়েছে। এখন আমাদের নিজস্ব স্যাটেলাইট হয়ে গেছে, আমরা সারাদেশে ইন্টারনেট সুবিধা চালু করে দিয়েছি, প্রায় ৯৯ ভাগ জেলায় ব্রডব্যান্ড ইতোমধ্যে চালু হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালিক এবং কনফেডারেশন অব মেডিকেল এসেসিয়েশন অব এশিয়া এন্ড ওশেনিয়া অঞ্চলের সভাপতি ডা. রবীন্দ্রান আর নাইডু অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) সভাপতি ড. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া এবং বিএমএ মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর