শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৪:২১ পিএম


হবিগঞ্জে শতভাগ স্কুলে শহীদ মিনার, স্কুল ভবন জাতীয় পতাকার আদলে

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:১২, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার শতভাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়েছে। বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে এ সকল স্কুলে এই শহীদ মিনার বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এর মাঝে সবচেয়ে বেশি সহায়তা করেছেন হবিগঞ্জ ৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির। শিগগিরই এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শতভাগ শহীদ মিনার বাস্তবায়ন উপলক্ষে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা শিক্ষা অফিস একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে বলে জানা গেছে।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১৪৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মাঝে অনেকগুলোতে স্থানীয় উদ্যোগে অনেক আগেই শহীদ মিনার করা হয়। কিছু কিছু প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন পরিষদ এর প্রকল্প থেকেও করা হয় শহীদ মিনার। যে সকল স্কুলে শহীদ মিনার ছিল না সেগুলোর অধিকাংশতে হবিগঞ্জ ৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির টিআর ও কাবিখা প্রকল্পের মাধ্যমে শহীদ মিনার করেন। এর বাইরে উপজেলা প্রকৌশলী অফিস, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার যৌথ প্রচেষ্টায় সদর উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই শেষ হয়েছে শহীদ মিনারের কাজ।

এদিকে জেলার বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা হকও উদ্যোগ নিয়েছেন তার উপজেলার সকল স্কুলে শহীদ মিনার বাস্তবায়ন করতে। তিনি আগামী ২১ ফেব্রুয়ারির মাঝে সকল প্রতিষ্ঠানে যেকোনো প্রকল্প থেকে অর্থ দিয়ে তা বাস্তবায়নের আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনকে জাতীয় পতাকার আদলে রং করনের কাজ চলছে। এর মধ্যে বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রং করনের কাজ শেষ হয়েছে। হবিগঞ্জ শহরের টাউন মডেল সরকারি বালিকা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারতলা ভবনটি দূর থেকে দেখলে মনে হবে একটি জাতীয় পতাকা। এই ভবনের উত্তর দিকের দেয়াল পুরোটাই লাশ সবুজে রং করা হয়েছে। এখন অনেক দূর থেকে এই ভবনটি দৃশ্যমান হয়েছে।

হবিগঞ্জ শহরতলির বহুলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরনো ভবনটিও জাতীয় পতাকার আদলে রং করা হয়েছে। ওই স্কুলের শিক্ষার্থীদের পোশাকও লাশ-সবুজ। দূর থেকে দেখে মনে হয় এই স্কুলটি যেন লাল সবুজের মেলা।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক এ ব্যাপারে জানান, হবিগঞ্জের বেশির ভাগ স্কুলের ভবনগুলো ছিল রংহীন। এ বছর উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে ক্ষুদ্র মেরামতের বরাদ্দ আসলে সেখান থেকে ভবনের এই রং এর কাজ হয়েছে। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সকল স্কুলে নির্মাণ হয়েছে শহীদ মিনার। এর ফলে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ এবং ভাষার ইতিহাস জানবে এবং উপলদ্ধি করবে।

তিনি আরো জানান, জেলায় সরকারি প্রাথমিব বিদ্যালয় আছে ১০৫২টি। এর মাঝে ৩ শতাধিক স্কুলে শহীদ মিনার আছে। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার এই শতভাগ বাস্তবায়ন দেখে অন্যান্য উপজেলাও এগিয়ে আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

হবিগঞ্জ ৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকার সদর উপজেলায় যাতে শতভাগ স্কুলে শহীদ মিনার হয় তার জন্য আমি নির্দেশ দিয়েছিলাম। সকলের আন্তরিকতায় এখন তা বাস্তবায়ন হয়েছে। এবার আমার নির্বাচনী এলাকার অন্য দুই উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জ ও লাখাইয়েও শতভাগ স্কুলে শহীদ মিনার বাস্তবায়ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। কারণ এই শহীদ মিনার হলো আমাদের ঐতিহ্যের প্রতীক।


এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর