শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৩:১৯ পিএম


সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির প্রয়োজনীয়তা কি?

ইমাম এইচ শাহিন

প্রকাশিত: ১১:০৫, ৩০ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১১:০৮, ৩০ আগস্ট ২০১৯

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ম্যানেজিং কমিটি বিলুপ্ত না করে সভাপতির যোগ্যতা স্নাতক ডিগ্রী করলেই কী সুফলতা ফিরে আসবে ?

সরকার ম্যানেজিং কমিটি দলীয় করনে এটি তার ভাবমূর্তি বা লক্ষ্য থেকে ছিটকে গেছে।প্রত্যেক এলাকায় বিদ্যালয় কেন্দ্রিক রাজনিতী শুরু হয়েছে।অশিক্ষিত স্বাক্ষর ঙ্গানহীন ব্যক্তিদের জন্য বিদ্যালয় থেকেই শিশুরা গ্রাম্য রাজনিতীর নোংরামি সম্পর্কে ধারনা লাভ করে।

বর্তমানে বাংলাদেশের শতকরা ৯০% বিদ্যালয়ে নিয়মিত ম্যানেজিং কমিটির মিটিং হয়না।কারন মিটিং কল করলে কোরাম মিল হয়না।তাই জরুরী মহুর্তে প্রঃশিঃ নোটিশ বুকের মতো ও রেজ্যুলেশন বহি সদস্যদের বাড়ি পাঠিয়ে স্বাক্ষর আনতে হয়।আবার আর্থিক কোন বিষয় থাকলে তাদের চাহিদা পূরন না হলে চেক অথবা রেজ্যুলেশন পাশ করেনা।

ব্যক্তিগত অভিঙ্গতা থেকে বলছি, আমি ভারপ্রাপ্ত থাকা কালীন ০৮ বছরে ০২ টি ম্যানেজিং কমিটি গঠন করে ছিলাম। ইচ্ছে ছিল কমিটি কার্যকরী গড়ে তুলতে।উক্ত সসময়ের আমি মোট ৭৮ টি সভা আহবান করে ছিলাম।আমি মাঝে মাঝে নিজে গিয়েছি সদস্যদের বাড়ি বাড়ি তাদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে।এর পরও প্রায় ৫০% সভা ৫ জন নিয়ে কোরাম৭৮ টি সভার কোনটিতেই ওয়ার্ড মেম্বার অথবা হাইস্কুলের শিক্ষক উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারিনি।

তারা সমাজ সম্পৃক্তকরন অথবা বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে কোন ভূমিকাটি পালন করে?

তাদের লক্ষ্যেই থাকে স্কুলের কমিটিতে নাম লেখানো, এতে তাদের মতে সামাজিক স্ট্যাটাজ বৃদ্ধি পায়।আমি সদস্যদেরকে ম্যানেজিং কমিটির ম্যানুয়াল পরে শুনাতাম ও তাহা মাঝে মাঝে স্মরন করিয়ে দিতাম কিন্তু কোন ফায়েদা হয়নি।

বিঃদ্রঃ সিংহ ভাগ ম্যানেজিং কমিটিতে সভাপতি ও সদস্যদেরতে দলীয় করন করা হয়েছে।যারা তৃনমূলের নোংরা রাজনিতী করে তারাই সাধারনত সভাপতি হতে প্রার্থী দৌড়ে টিকে থাকে।তারা মসে করে স্কিলে কতইনা বরাদ্দ। স্লিপ বা অন্যান্য বরাদ্দ আসা মাত্রই তার ভাগেরটা রেখে বাকীটা খরচ করতে বলেন। আবার এমনো সভাপতি আছে যারা ক্ষুদ্র ও মাইনর মেরামতের টাকায় যাচ্ছে তাই কাজ করে ৬০% টাকা হাতিয়ে নেয়।

অদ্যবদি বহু প্রমান মেলেছে কোন প্রশিঃ বা সহঃ শিক্ষক তাদের এহেন অন্যায়ের প্রতিবাদ করা তবে যে প্রতিবাদ করবে তাকে পড়তে হয় বিপাকে শুরু হয় হুমকি, লাঞ্ছনা, হাতাহাতি আবার কোথাও রক্তাক্তির ঘটনাও ঘটেছে।প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির দ্বারা কর্মঘন্টার অপচয় ও শিশুদের কে দেয়া বরাদ্দের প্রায় অর্ধেক টাকার অপচয় হয়। এছাড়া অন্য কোন সুফল আসেনি।

উল্লেখ যেহেতু অন্যান্য সরকারি প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটি লাগেনা। তবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির প্রয়োজনীয়তা কী?

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর