শনিবার ০৪ এপ্রিল, ২০২০ ১৫:৩৪ পিএম


সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ঢাবি অংশ নেবে কিনা জানা যাবে ২৫ ফেব্রুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:০৩, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৯:০৫, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সমন্বিত বা কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালগুলো শিক্ষার্থী ভর্তি করাবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। তবে ওই সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অংশ নেবে কিনা সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেট সভায়। আগামী সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হবে। আর সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হবে মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি)। এরপরই জানা যাবে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেবে কিনা। অন্যদিকে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বৈঠক আহ্বান করেছে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি।

ঢাবির অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন ‘অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা আগামী সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) এবং সিন্ডিকেট সভা মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি)অনুষ্ঠিত হবে। অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলে কেন্দ্রীয় ভর্তি এবং সান্ধ্যকালীন কোর্সের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

অ্যাকাডেমিক সভায় ঢাবির আলোচিত সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তির বিষয়টি নিয়েও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে বলেও জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। গত বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) ১২টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তবে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় যাবে কিনা, সে বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানোর কথা রয়েছে। শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় না যাওয়ার কিছুটা ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে । গত (৮ ফেব্রুয়ারি) বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য, জাতীয় অধ্যাপক, ইমিরিটাস অধ্যাপক, শিক্ষাবিদ, উপাচার্য, উপ-উপাচার্যদের একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই কোরামের সদস্যরা কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় না যাওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন বলে জানা গেছে। একইদিন অনুষ্ঠিত ডাকসুর চতুর্থ কার্যনির্বাহী সভায়ও এর প্রতিনিধিরা কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় না যাওয়ার পক্ষে মত দেন। গত ১২ ফেব্রুয়ারিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কোরামের মতামত উত্থাপন করেন এবং এ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় ঢাবি যাবে কিনা, সে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক সভার সিদ্ধান্তের নেওয়া হবে বলে জানান।

তবে ইউজিসি’র খসড়া প্রস্তাবে বলা হয়েছে, এখন থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রথমবর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির জন্য আর পৃথক ভর্তি পরীক্ষা দিতে হবে না। তবে নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও স্বতন্ত্রতা বজায় রেখে নির্ধারিত শর্তে শিক্ষার্থী ভর্তি করাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।’

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্সের বিষয়ে গঠিত তদন্ত কমিটি গত ৯ ফেব্রুয়ারি উপাচার্যের কাছে প্রতিবেদন জমা দেয়। প্রতিবেদনে কমিটির সদস্যরা সান্ধ্যকোর্সে সাময়িকভাবে ভর্তি কার্যক্রম বন্ধের সুপারিশ করেন। এরপর গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড . মুহাম্মদ সামাদ এবং অনুষদের ডিনদের নিয়ে আরেকটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানেও ওই প্রতিবেদন নিয়ে আলোচনা হয় এবং সাময়িকভাবে সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে কমিটির দেওয়া প্রতিবেদন গ্রহণ করা হয় এবং অ্যাকাডেমিক কমিটিতে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানানো হয়।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর