রবিবার ০৯ আগস্ট, ২০২০ ২২:৪৯ পিএম


শীঘ্রই অনলাইনে ফেরত দেওয়া যাবে রেলের টিকিট

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:৪২, ৮ মে ২০২০  

বছরের পর বছর ধরে উদ্ভট এক সিস্টেম চালু ছিল বাংলাদেশ রেলওয়েতে। কাউন্টার কিংবা অনলাইনে রেলের টিকিট করে সেটা আবার ফেরত দিতে চাইলে কাউন্টারে যেতে হতো! দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট ফেরত দেওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই মানুষের আগ্রহ কম। এজন্য টিকিট বেশি দামে হাতবদল হয়ে যাচ্ছে। রেলের কিছু অসাধু কর্মীও এই সুযোগে যাত্রীদের ঠকিয়ে যাচ্ছিল। বারবার দাবি উত্থাপনের পরেও এ নিয়ে কোনো হেলদোল ছিল না রেলওয়ের। এবার পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে মান্ধাতা আমলের ওই সিস্টেমের।

সদ্য রেলপথ মন্ত্রণালয়ে যোগদান করা অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবির মিলন এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে অনলাইনে টিকিট ফেরত এবং টাকা রিফান্ডের উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, `রেলে অনলাইনে টিকিট করলে তা ক্যান্সেল এবং রিফান্ডের জন্য যেতে হয় কাউন্টারে। টিকিট করলেন ঘরে বা অফিসে বসে, রিফান্ডের জন্য যেতে হবে কাউন্টারে। আপনি ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড দিয়ে অনলাইনে টিকিট করলেন, রিফান্ডের টাকা কয়েকদিন পর অটোমেটিক জমা হবে আপনার কার্ডের একাউন্টে। জগতভরা এখন এটাই নিয়ম।`

`আমাদের দেশে সরকারি বেসরকারি সব বিমান কোম্পানিগুলো রিফান্ড দেয় অনলাইনে। রেলের ক্ষেত্রে যেতে হবে আপনাকে কাউন্টারে, হয়ত দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে। আমাদের অনেক বাস সার্ভিস এখন টিকিট এবং রিফান্ড অনলাইনে করে ফেলেছে। তার মানে অনলাইনে রিফান্ড কোন রকেট সায়েন্স নয় বা শনি কিংবা নেপচুন গ্রহে মানুষ পাঠানোর মত শক্ত কিছু নয়। বাংলদেশ বিমানের একাউন্টস শাখার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে বিশদ কথা বলে পুরো প্রক্রিয়া জেনে নিলাম। চাইলে তাঁরা এসে রেলের একাউন্টসে বিষয়টি পরিস্কার করে দিয়ে যেতে পারবেন।`

`পূর্ব এফএ এন্ড সিএও মহোদয়ের সাথে কথা বলে তাঁদের একাউন্টস শাখাকে এ বিষয়ে মানসিক প্রস্তুতি রাখার জন্য অনুরোধ জানালাম। তিনি সব সাহায্য করবেন বলে জানালেন। বাকি কাজ বর্তমান সিএনএসবিডি`র। কোন সমস্যা হবে না সেখানে। অফিস খুললেই রেলে অনলাইন রিফান্ডের কাজ শুরু হবে ইনশাআল্লাহ। আধুনিকায়নের কোন বিকল্প নেই। মান্ধাতা আমলের চিন্তা ভাবনার জড়তা ভাঙতেই হবে।`

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর