শনিবার ২৪ আগস্ট, ২০১৯ ১৯:১৭ পিএম


শিশুর পরীক্ষা-মূল্যায়ন পদ্ধতি প্রসঙ্গে

মো. সিদ্দিকুর রহমান

প্রকাশিত: ০৮:২৪, ২৩ এপ্রিল ২০১৯  

শিক্ষা আনন্দময় ও আকর্ষণীয় করার লক্ষ্যে সব শিশুর জন্য অভিন্ন কর্মঘণ্টা, পাঠ্যবই ও আদর্শ মূল্যায়ন ব্যবস্থার প্রয়োজন। শিশু শিক্ষার্থীদের অভিন্ন কর্মঘণ্টা ও বইয়ের দাবিতে ২১ মার্চ বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন শেষে প্রধানমন্ত্রী সমীপে স্মারকলিপি পেশ করেন।

২২ মার্চ ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার এক অনুষ্ঠানে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কর্মঘণ্টা কমানোর দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। ৩০ মার্চ কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীর পাটেশ্বরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ের কর্মঘণ্টা কমানোর পাশাপাশি কিন্ডারগার্টেন স্কুল প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বইয়ের ভারে শিশুরা ক্লান্ত। এ বই তাদের মেধা নষ্ট করে দেয়।

প্রধানমন্ত্রী ১৩ মার্চ জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ অনুষ্ঠানে বক্তব্যে শিশুদের ওপর অতিরিক্ত চাপ না দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। এর ফলশ্রুতিতে ১ম শ্রেণীতে ভর্তি পরীক্ষাসহ তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত সব পরীক্ষা বন্ধ করার জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিন্ন মূল্যায়ন ব্যবস্থা সব শিশু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে না হলে প্রাথমিকে শিক্ষার্থী সংকট তীব্র আকার ধারণ করবে। কারও কঠোর শাসন ও পরীক্ষা ছাড়া শিশু শিক্ষার্থীর জ্ঞান অর্জন ও বিকাশ সম্ভব নয়। এ ধারণা সেকালের। লেখাপড়া, পরীক্ষার ভীতি ও ঝরে পড়ার অন্যতম কারণ বলে মনে করেন শিশু মনোবিজ্ঞানীরা।

শিশুরা আনন্দদায়ক পরিবেশে শিক্ষাগ্রহণের সুযোগ পেলে সে শিক্ষা হবে অত্যন্ত ফলপ্রসূ। তাই একনাগাড়ে ক্লাসের পরিবর্তে ফাঁকে ফাঁকে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি খেলাধুলা, চিত্রাঙ্কন ও নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হলে সে শিক্ষা হবে আনন্দদায়ক ও অধিকতর কার্যকর। পাঠের প্রয়োজনে দর্শনীয় স্থানে ভ্রমণ করা বার্ষিক পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত করা প্রয়োজন।

সব শ্রেণীর জন্য স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রশ্ন পুস্তিকা প্রণয়ন করা উচিত। প্রশ্ন পুস্তিকায় যাতে শিক্ষার্থীর সব জ্ঞান যাচাই হয় এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। এ প্রশ্ন পুস্তিকা অনুসরণ করে শিক্ষক প্রতিদিন পাঠের মাঝে বা শেষে, অধ্যায় বা গল্প পাঠের শেষে মৌখিক বা লিখিত মূল্যায়ন করবেন। দুর্বল বা অনুপস্থিত শিশুর ক্ষেত্রে বিশেষ পাঠ দিয়ে কাক্সিক্ষত যোগ্যতা অর্জন করাবেন। পাঠ্যবই হতে হবে স্বয়ংসম্পূর্ণ। শিশুর জন্য নিজে নিজে পাঠ্যবই দেখে প্রশ্ন তৈরি করা ও উত্তর লেখার সুযোগ থাকতে হবে। বিদ্যালয়গুলোতে পর্যাপ্ত শিক্ষক, ফটোস্ট্যাট মেশিন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা থাকতে হবে। পরীক্ষা বন্ধ হলে নোট-গাইড, কোচিং সেন্টারের ব্যাপকতা কিছুটা হলেও কমবে। শিশুকে নিয়ে কোচিং সেন্টারে দৌড়াদৌড়ি, নোট-গাইড বই কেনা থেকে মুক্তি পাবেন অভিভাবকরা।

বর্তমান পরীক্ষা পদ্ধতি অনেকটা হাতুড়ে ডাক্তারের চিকিৎসার মতো। ডিগ্রিবিহীন ডাক্তার যেমন লক্ষণ দেখে বা শুনে ওষুধ দিয়ে থাকেন, তেমনি বর্তমান পরীক্ষা পদ্ধতিতেও অধ্যায় বা পুরো বই থেকে কতিপয় প্রশ্ন দিয়ে শিক্ষার্থীর জ্ঞান যাচাই করা হয়। হাতুড়ে ডাক্তারের চিকিৎসায় যেমন অনেক ক্ষেত্রে রোগীর দেহে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে, তেমনি বর্তমান পরীক্ষা পদ্ধতিতে জিপিএ-৫ পেয়েও শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি তথা নানা ক্ষেত্রে হোঁচট খেতে দেখেছি। ওষুধ খেয়ে অসুস্থ থাকা যেমন প্রকৃত চিকিৎসা নয়; তেমনি জ্ঞান অর্জন ছাড়া পাস কোনো কার্যকর শিক্ষা নয়। দেহের সব অঙ্গ পরীক্ষার মাধ্যমে পরিপূর্ণ চিকিৎসা পেয়ে রোগী যেমন সুস্থ জীবনযাপন করতে পারে, শিক্ষার্থীও তেমনি তার সার্বিক কর্মকাণ্ডের পরীক্ষার মাধ্যমে আদর্শ ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে পারে।

বর্তমান পরীক্ষা ব্যবস্থায় শুধু লিখিতভাবে খানিকটা জ্ঞান যাচাই করা হয়। স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রশ্ন পুস্তিকার মাধ্যমে লিখিত মূল্যায়নের পাশাপাশি শিক্ষার্থীর বাহ্যিক জ্ঞানও যাচাই করতে হবে। যেমন রিডিং স্কিল, বিদ্যালয়ে সময়মতো আগমন-প্রস্থান, নখ-চুল-দাঁত নিয়মিত পরীক্ষা করা। বাথরুম ব্যবহার, জাতীয় দিবসের কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ, নিয়মিত সমাবেশে যোগদান, জাতীয় ইতিহাস তথা বাঙালি সংস্কৃতি এবং নিজ ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান ও ধর্ম পালন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা যাচাই, নিজের কাজ নিজে করে কিনা, পাঠ্যবইয়ের বাইরে পত্র-পত্রিকা, গল্পের বই পড়ার অভ্যাস গঠন ইত্যাদি। এককথায়, শিক্ষার্থীর লিখিত মূল্যায়নের পাশাপাশি তাকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য অন্য সব গুণাবলী অর্জনে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

কার্যকর মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু করার মাধ্যমে এক্ষেত্রে সব চ্যালেঞ্জ দূর করতে হবে। পর্যাপ্ত শিক্ষক, শিক্ষকদের ১ম শ্রেণীর মর্যাদা, বেতন কাঠামো, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকসহ ফটোস্ট্যাট মেশিন, কাগজসহ সমুদয় ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

শিক্ষার্থীর সার্বিক মূল্যায়নে ব্যর্থ শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন। শিক্ষার্থীর শিক্ষা বা মূল্যায়ন ব্যবস্থায় বিঘ্ন সৃষ্টিকারী যত বড় ক্ষমতাবানই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আগামী প্রজন্মকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আদর্শ মূল্যায়ন ব্যবস্থার বিকল্প নেই। বাণিজ্যভিত্তিক পরীক্ষা ব্যবস্থার মৃত্যু ঘটুক। আগের মতো নোট-গাইড, কোচিং ব্যবসার যাতে প্রসার না ঘটে, সেদিকে সবাইকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।

শিক্ষাবিদ, শিশু মনোবিজ্ঞানী, সরকার তথা সংশ্লিষ্টদের দল-মত নির্বিশেষে আদর্শ মূল্যায়ন ব্যবস্থা নিয়ে ভাবতে হবে। সব শিশুর জন্য অভিন্ন আদর্শ মূল্যায়ন ব্যবস্থার মাধ্যমে শিশু শিক্ষার বৈষম্য দূর হবে।

মো. সিদ্দিকুর রহমান : আহ্বায়ক, বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ এবং প্রাথমিক শিক্ষক অধিকার সুরক্ষা ফোরাম

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর