শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৭:৩৮ পিএম


যে কারণে প্রাথমিক শিক্ষায় 'মডেল শিক্ষক'

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:৪২, ১৭ আগস্ট ২০১৯  

এটি খুবই স্বস্তির বিষয় যে, অবশেষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুধাবন করতে পারছে যে, দেশের উপজেলা পর্যায়ের বেশিরভাগ স্কুলের পাঠদান নিম্নমানের। আর তাই মন্ত্রণালয় একটি নূতন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, যার প্রতি সাধুবাদ জানানো আমাদের কর্তব্য বোধ হচ্ছে। মন্ত্রণালয় ভেবেছে, দেশের সেরা প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলির শিক্ষকদের মধ্য হতে যোগ্যতার বিচারে মনোনীত করা হবে মডেল শিক্ষক। তাদেরকে সরকারের পক্ষ হতে বিশেষভাবে পুরস্কৃতও করা হবে। এবং এই মডেল শিক্ষকদের দিয়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলার অপেক্ষাকৃত পিছিয়ে পড়া বিদ্যালয়গুলির দুর্বল শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হবে। বিশেষ করে, ঐসব শিক্ষার্থীকে ইংরেজি এবং গণিত বিষয়ে শিক্ষাদানের জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এর জন্য ২ হাজার মাস্টার ট্রেইনার তৈরি করা হচ্ছে। আর কাজটি করা হবে ব্রিটিশ কাউন্সিলের মাধ্যমে। এই বিষয়ে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি চুক্তিও স্বাক্ষর হয়েছে। মন্ত্রণালয় জনাচ্ছে, শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য উপজেলা পর্যায়ে ফলাফলের দিক দিয়ে সেরা স্কুলগুলির শিক্ষকদের মধ্য হতে নির্বাচিত করা হবে মডেল শিক্ষক। এই শিক্ষকরা শিক্ষা দিবেন পিছয়ে পড়া এবং ফলাফলে দুর্বল স্কুলের শিক্ষার্থীদের।

এই উদ্যোগ কার্যকর হলে নিঃসন্দেহে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। আমরা জানি, স্কুলশিক্ষায় বৈষম্যের কারণে অনেক মেধাবী শিক্ষার্থীও শিক্ষাজীবন হতে ঝরে পড়ে। এটি হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করেছিলেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি এ পি জে আবদুল কালাম। তাই তিনি ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রাথমিক শিক্ষা, বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রাথমিক শিক্ষার জন্য এবং সেসব শিক্ষার্থীর মানোন্নয়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য আজীবন লড়াই করেছেন। বাংলাদেশে প্রাথমিক স্কুলগুলির মধ্যে মান তারতম্যের এই দুর্বলতার কথা আমরা বহুকাল ধরে জানলেও, উপলব্ধি করলেও এবং তা নয়ে লেখালেখি হলেও এতকাল প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তবে প্রশ্ন থেকে যায়, যদি ভালো স্কুলের ভালো শিক্ষককে অন্য স্কুলে নিয়োজিত করা হয়, তাহলে ঐ স্কুলে শিক্ষকের অভাব তৈরি হবে কি না। আর সে কারণেই মন্ত্রণালয় মডেল শিক্ষকের বিষয়টিতে খানিকটা ধীর গতিতে আগাইতে চাচ্ছে। দ্বিতীয়ত, যে সকল শিক্ষক বর্তমানে ফলাফলে ভালো নয়, এমন স্কুলে রয়েছে, তাদের অবস্থান কী হবে?

আমরা মনে করি, যে ব্রিটিশ কাউন্সিলের মাধ্যমে যে মাস্টার ট্রেইনারদের প্রস্তুত করা হচ্ছে, তারাই উপজেলা পর্যায়ের ঐ স্কুলগুলির শিক্ষকদের সঠিকভাবে প্রশিক্ষণ দান করলে সমস্যা অনেকটাই লাঘব হয়ে যাবে। সবচাইতে বড়ো কথা হলো, প্রাথমিক শিক্ষা একজন মানুষের শিক্ষাজীবনের ভিত্তি। সমান মানের প্রাথমিক শিক্ষা লাভের সুযোগ পাবার অধিকার দেশের প্রতিটি শিশুর রয়েছে। শিক্ষা সুযোগ পাইলে তাদের মধ্য হতে একজন উজ্জ্বল মানুষ বের হয়ে আসতে পারে। কারণ শিক্ষাই একমাত্র বিষয়, যা ধনী-দরিদ্র, শহর-গ্রাম বোঝে না। সকলের কাছেই সমানভাবে ধরা দেয়। সুতরাং এই সুযোগ সকলের জন্যই সমানভাবে উপস্থাপন করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর