রবিবার ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৬:৪২ পিএম

Sonargaon University Dhaka Bangladesh
University of Global Village (UGV)

যুক্তরাষ্ট্রে ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়: শিক্ষার্থী আটকে ভারতের ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৭:০৬, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে শিক্ষার্থী ভিসায় যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার পর গ্রেপ্তার ১২৯ নাগরিকের মুক্তিতে কূটনৈতিক তৎপরতা শুরু করেছে ভারত।

বিবিসি জানায়, ওই ১২৯ শিক্ষার্থী মিশিগান অঙ্গরাজ্যে দ্য ইউনিভার্সিটি অব ফারমিংটন নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিল।

পরে জানা যায়, বাস্তবে ওই নামে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্তিত্ব নেই। বহু ব্যবহৃত ‘পে-টু-স্টে’ অভিবাসন প্রতারণার মুখোশ উন্মোচন করতে যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টেমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটির ছদ্মবেশী এজেন্টরা অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে এই ফাঁদ পেতেছিলেন।

মার্কিন প্রসিকিউটরদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়টি ভুয়া জেনেও গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা ভর্তি হয়েছেন।

অন্যদিকে ভারতীয় কর্মকর্তাদের দাবি, তাদের শিক্ষার্থীরা নিজেরাই প্রতারণার শিকার হয়ে হয়তো না জেনে ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে।

ভারতের বহিঃসম্পর্ক মন্ত্রণালয় শনিবার রাজধানী দিল্লিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে এ বিষয়ে একটি প্রতিবাদ লিপি পাঠিয়েছে বলে জানায় বিবিসি।

ওই প্রতিবাদ লিপিতে গ্রেপ্তার শিক্ষার্থীদের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশের পাশপাশি তাদের সঙ্গে ভারতীয় দূতাবাস কর্মকর্তাদের দেখা করতে দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, শিক্ষার্থী ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের পর সেখানেই থেকে যেতে চাওয়া বিদেশিদের পাকড়াও করতে ২০১৫ সালে ওই ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে একটি ওয়েবসাইট চালু করা হয়।

ওয়েব সাইটে শিক্ষার্থীরা ক্লাস করছে, লাইব্রেরিতে কাজ করছে, সবুজ ক্যাম্পাসে গল্প করছে এমন বেশ কয়েকটি ছবি দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপনে আন্ডারগ্রাজুয়েট শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিবছর টিউশন ফি সাড়ে ৮ হাজার মার্কিন ডলার এবং গ্রাজুয়েট শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতি বছর ১১ হাজার মার্কিন ডলার ফি’র কথা বলা হয়।

ইউনিভার্সিটি অব ফারমিংটন নামে খোলা ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ছবি। ইউনিভার্সিটি অব ফারমিংটন নামে খোলা ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ছবি। এমনকি ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে ফেইসবুকে একটি পাতা খুলে সেখানে দৈনন্দিন কার্যক্রমের বিভিন্ন তালিকা দেওয়া হয়।

ইস্টার্ন ডিস্ট্রিক্ট অব মিশিগানের জেলা আদালতে গ্রেপ্তার ভারতীয় শিক্ষার্থীদের বিচার চলছে।

গত সপ্তাহে আদালত থেকে প্রকাশ করা একটি নথিতে ইউনিভার্সিটি অব ফারমিংটনের হর্তাকর্তারা আসলে ‍যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট এজেন্সির (আইসিই) ছদ্মবেশী এজেন্ট বলে জানানো হয়।

আর ওয়েব সাইটে দেওয়া ক্যাম্পসের ছবি আদতে ডেট্রোয়েটের একটি বাণিজ্যিক এলাকার একটি অফিসের ক্যাম্পাস।

আদালত থেকে বলা হয়, যদিও ওই শিক্ষার্থীরা জানতেন বিশ্ববিদ্যালয়টি ভুয়া।

“বিদেশি নাগরিকদের কাছে পে-টু-স্টে স্কিমের জন্য বিশ্ববিদ্যালটি খোলা হয়েছিল।”

ভারত সরকারে দাবি, তাদের শিক্ষার্থীরাই হয়তো না জেনে ভর্তি হয়ে প্রতারিত হয়েছে। তাই তাদের সঙ্গে অন্যদের মত আচরণ করা উচিত হবে না।

“আমরা যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে আমাদের শিক্ষার্থীদের পূর্ণ তথ্য এবং তাদের অবস্থার নিয়মিত খবর জানানোর আহ্বান জানিয়েছি। এছাড়াও তাদের যত দ্রুত সম্ভব মুক্তি দেওয়া এবং তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে দেশে পাঠিয়ে না দেওয়ার অনুরোধও করা হয়েছে।”

আটক শিক্ষার্থীদের বিতাড়িত করা হতে পারে বলে জানিয়েছে ডেট্রোয়ট নিউজ।

শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন স্বজনদের নিয়মিত খবর দিতে ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসে একটি হটলাইন চালু করা হয়েছে বলে জানায় টাইমস অব ইন্ডিয়া।

দিল্লিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে প্রতিবাদ লিপি পাওয়ার কথা জানালেও এ বিষয়ে আর কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি।

‘পে-টু-স্টে’ স্কিমে ভর্তি হওয়া বিদেশিদের ধরতে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষের এ কাণ্ড নতুন নয়। এর আগে ২০১৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব নর্দান নিউ জার্সি নামে একটি ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ২১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

সাধারণত চীন এবং ভারত থেকে শিক্ষার্থী ভিসায় যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার প্রবণতা বেশি।

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর