বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৭:৫৪ পিএম


মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা না পেছানোর দাবিতে স্মারকলিপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১১:৫৯, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

মেডিকেল কলেজে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা না পেছানোর দাবি জানিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছেন ভর্তিচ্ছু হিন্দু সম্প্রদায়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিভাবক। পূর্ব নির্ধারিত আগামী ৪ অক্টোবর পরীক্ষা বহাল রাখার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপরের এক পরিচালকের কাছে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন তারা।

সম্প্রতি দুর্গাপূজার কারণে ৪ অক্টোবরের পরিবর্তে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা ১১ অক্টোবর নেওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এতে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা।

তারা জানান, প্রথমে বুয়েটে ৫ অক্টোবর এবং মেডিকেলে ৪ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার তারিখ ঘোষণা করা হয়। পরপর দুইটি গুরুত্বপূর্ণ ভর্তি পরীক্ষা পড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। এরপর বুয়েট কর্তৃপক্ষ পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করে ১৪ অক্টোবর নির্ধারণ করে। কিন্তু দুর্গাপূজার জন্য এখন মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর থেকে পিছিয়ে ১১ অক্টোবর নেওয়ার কথা জানা গেছে।

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা না পেছানোর দাবি জানিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা জানান, আমরা সনাতন ধর্মাবলম্বী। অন্যান্য সবার মতো আমরাও দুর্গাপূজা করি। পরীক্ষা পেছানোর জন্য দুর্গাপূজার কারণ দেখানো হয়েছে, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে পূজা শুরু হবে মূলত ৫ অক্টোবর থেকে এবং চলবে ৮ অক্টোবর পর্যন্ত। সেক্ষেত্রে আমাদের সন্তানেরা ৪ অক্টোবর পরীক্ষা দিতে পারলেই বরং মনের আনন্দে পূজা করতে পারত এবং সেইসঙ্গে আমরা অভিভাবকরাও নিশ্চিন্ত হতে পারতাম। বিজয়া দশমীর দুই দিন পরই যেখানে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঝুলছে, সে পরিস্থিতিতে তাদেরকে পূজার আনন্দই বা কতটুকু স্পর্শ করবে আর ধর্মীয় রীতিনীতিই বা কতটুকু পালন করতে পারবে? কেননা, এই সময় বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান পালন করতে হয়; আর হৈ-হুল্লোর, গান-বাজনা অনবরত চলতে থাকে। আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশি আসা-যাওয়া করতে থাকে। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় চান্স পাওয়া এমনিতেই অনেক কঠিন ব্যাপার। এক্ষেত্রে পূর্ব প্রস্তুতি ক্ষতিগ্রস্ত হলে বিষয়টি আরও জটিল হয়ে যাবে।

কল্যাণ সাহা নামে এক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর অভিভাবক জানান, মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ১১ অক্টোবর নেওয়া হলে আবারও বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষার পাশাপাশি দুইটি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা দিতে হবে। এতে করে শিক্ষার্থীরা আবারও সঙ্কটে পড়বে। ১২ অক্টোবর চুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা থাকায় ১১ অক্টোবর মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা থাকলে সেই পরীক্ষা দিয়েই চুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছুটতে হবে শিক্ষার্থীদের। আবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা এসে ১৪ অক্টোবর বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এতে শিক্ষার্থীদের ওপর চরম মানসিক এবং শারিরিক চাপ পড়বে। সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া সম্ভব হবে না।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর