শনিবার ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০:১৮ এএম


মাধ্যমিকে শিক্ষক আত্তীকরণে বিধিমালা চূড়ান্ত, প্রজ্ঞাপন শিগগিরই

আফতাব তাজ

প্রকাশিত: ১১:২৮, ১৫ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৫:২১, ১৫ নভেম্বর ২০১৯

নতুন সরকারি হওয়া মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক ও কর্মচারীদের আত্তীকরণে ‘মাধ্যমিক/উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষক ও কর্মচারী আত্তীকরণ বিধিমালা’নামে আসছে নতুন বিধিমালা। জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এ বিধিমালা চূড়ান্ত করেছে। সচিব কমিটিতে পাশ হলেই গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক-১) নাজমুল হক খান এডুকেশন বাংলাকে বলেন, ‘আত্তীকরণ বিধিমালা চূড়ান্তই বলা যায়, এখন শুধু সচিবকমিটিতে পাশ হলেই গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে। নতুন বিধিমালায় কি ধরণের পরিবর্তন আনা হয়েছে এ প্রশ্নের জবাবে নাজমুল হক খান বলেন, ১৯৮৩ সালের মাধ্যমিকের বিধিমালা সাথে সামঞ্জস্য রেখেই বর্তমান বিধিমালাটি চূড়ান্ত করা হয়েছে তবে কলেজ আত্তীকরণ বিধিমালার সাথে মাধ্যমিকের বিধিমালার অনেকটা মিল রয়েছে।

উল্লেখ্য, সরকারি কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারি আত্তীকরণ বিধিমালা ২০১৮ `এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধারা হলো `কার্যকর চাকরিকাল`। এ ধারাতে বলা আছে সরকারিকৃত কলেজে আত্তীকৃত কোনো শিক্ষক বা কর্মচারী সংশ্লিষ্ট কলেজ সরকারিকরণের অব্যবহিত পূর্ব পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে উক্ত কলেজে সর্বমোট যে সময়কাল চাকরি করিবেন, উক্ত চাকরিকালের অর্ধেক সময় সংশ্লিষ্ট শিক্ষক বা কর্মচারীর কার্যকর চাকরিকাল হিসাবে গণ্য হইবে।

তিনি বলেন, মাধ্যমিকের নতুন বিধিমালাতেও বেসরকারি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগের শুরু থেকে আত্তীকরণ হওয়া পর্যন্ত চাকরির মোট বয়সের অর্ধেক ধরে সরকারি চাকরিতে অস্থায়ী নিয়োগ ধরা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, নতুন বিধিমালায় প্রতিষ্ঠান বেসরকারি থাকার সময় নিয়োগের সিনিয়রিটি অনুযায়ী অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষক-কর্মচারীদের সিনিয়রিটিও নির্ধারিত হবে। আত্তীরকরণ করা শিক্ষকরা পদোন্নতি পাবেন। এ ক্ষেত্রে পদভিত্তিক সিনিয়রিটি ও সরকার নির্ধারিত শর্তসাপেক্ষে পদোন্নতি দেওয়া হবে।

১৯৮৩ সালের যে বিধিমালাটি ছিলো তা বাতিল হয়ে যাওয়ায় বর্তমানে ২০১০ সালের একটি পরিপত্র অনুযায়ী শিক্ষক কর্মচারীদের আত্তীকরণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র। এদিকে মাধ্যমিক শিক্ষকদেরও দীর্ঘদিনের দাবি ছিলো কলেজের মতোই যেন মাধ্যমিকের আত্তীকরণ বিধিমালাটিও করা হয়।

এডুকেশেন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর