বৃহস্পতিবার ২৩ মে, ২০১৯ ২৩:৩৭ পিএম


মাদ্রাসাকে জাতীয়করণ করা সময়ের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:১৬, ১১ মে ২০১৯  

উচ্চশিক্ষা একটি জাতির দক্ষ জনসম্পদ গড়ে তোলার মূল কারিগর। বিভিন্ন সেক্টরের চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত দক্ষ জনশক্তির জোগান নিশ্চিত করতে উচ্চশিক্ষার বহুমুখীকরণ একান্ত আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের শিক্ষার সুযোগের ক্ষেত্রে সমতা নিশ্চিত করে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। এ ব্যাপারে আমাদের সংবিধানের ১৭নং অনুচ্ছেদের (খ)তে বলা হয়েছে, `সমাজের প্রয়োজনের সঙ্গে শিক্ষাকে সঙ্গতিপূর্ণ করিবার জন্য এবং সেই প্রয়োজন সিদ্ধ করিবার উদ্দেশ্যে যথাযথ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও সদিচ্ছাপ্রণোদিত নাগরিক সৃষ্টির জন্য, রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।` বর্তমান উচ্চশিক্ষা প্রসারের এ যুগে ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি ৩২৭টি সরকারি কলেজ বিদ্যমান রয়েছে। তবে সম্প্রতি আরও ২৮৫টি কলেজ সরকারিকরণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে, যা নিঃসন্দেহ উচ্চশিক্ষার জন্য এক যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা এক কোটি ৩৭ লাখ ৭০ হাজার ৪৯৩ জন। যার মধ্যে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ২১ শতাংশ (২৯ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৫ জন)। কিন্তু উচ্চশিক্ষাতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী মাত্র ৪৯ লাখ ৭ হাজার ৫৬৯ জন। অর্থাৎ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীর প্রতি তিনজনে একজন উচ্চশিক্ষায় ভর্তি হয়। মাধ্যমিক শিক্ষা অনুপাত উচ্চশিক্ষার এ হার একটি হতাশাজনক চিত্রই তুলে ধরে।

এ চিত্র পরিবর্তন করে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে সংবিধানে বর্ণিত সুযোগ ও সমতা নিশ্চিত করতে, মাদ্রাসা শিক্ষার ফাজিল ও কামিল (স্নাতক ও স্নাতকোত্তর) মাদ্রাসাকে জাতীয়করণ করা সময়ের দাবি। কারণ উচ্চশিক্ষায় অধ্যয়নরত মোট শিক্ষার্থীর ১৮ শতাংশ মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত। ৮২ শতাংশ সাধারণ শিক্ষার্থীর জন্য মোট ৬১২টি কলেজ সরকারিকরণ করা হলে যৌক্তিকভাবেই ১৮ শতাংশ শিক্ষার্থীর জন্য ১৩৪টি মাদ্রাসাকে সরকারিকরণ তাদের অধিকার। কিন্তু বাস্তবতা হলো, দেশে মাত্র তিনটি সরকারি মাদ্রাসা বিদ্যমান রয়েছে। এ ক্ষেত্রে অবিলম্বে প্রতি জেলায় একটি করে সরকারি মাদ্রাসা স্থাপন করা রাষ্ট্রের কর্তব্য। শিক্ষাক্ষেত্রে বিরাজমান বৈষম্য নিরসন করতে না পারলে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য কখনোই অর্জন করতে পারব না। তাই সর্বাগ্রে প্রয়োজন বৈষম্যের নিরসন।

সুতরাং ২৮৫টি কলেজ জাতীয়করণের পাশাপাশি প্রতি জেলা থেকে একটি করে কামিল মাদ্রাসা জাতীয়করণ করে উচ্চশিক্ষার পথকে সবার জন্য উন্মুক্ত করার অধিকার বাস্তবায়ন একান্ত আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ জাতি আশা করে। আসুন, জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে সবাই দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সৎ, খোদাভীরু, যোগ্য ও দক্ষ নাগরিক তৈরিতে মাদ্রাসা শিক্ষার অধিকার প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা পালন করি।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর