শুক্রবার ০৭ আগস্ট, ২০২০ ১:৪৬ এএম


মহাসাগরে কমছে অক্সিজেন, বিপদে বিশ্ব

এডুকেশন বাংলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩:৩৯, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯  

বিজ্ঞানীরা বলছেন, অক্সিজেন হ্রাস পাওয়ার কারণে হুমকিতে পড়বে টুনা, মার্লিন, হাঙ্গরের মতো অনেক মাছ। জলবায়ু পরিবর্তন এবং দূষণের কারণে মহাসাগরগুলোতে অক্সিজেন কমে যাচ্ছে, যার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে মাছের অসংখ্য প্রজাতি।

পরিবেশ সংরক্ষণ সংস্থা আইইউসিএন-এর বড় ধরনের একটি গবেষণায় এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে। বহু দশক ধরেই বিজ্ঞানীরা জানতেন যে, মহাসাগরগুলোতে পুষ্টিমান কমে যাচ্ছে। এখন গবেষকরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে অক্সিজেন হ্রাস পরিস্থিতিকে মারাত্মক করে তুলছে, ফলে হুমকিতে পড়ছে টুনা, মার্লিন, হাঙ্গরের মতো অনেক মাছ। কারণ বড় মাছগুলোর বেশি শক্তির দরকার হয়। সারা বিশ্ব জুড়ে সাতশোর বেশি সামুদ্রিক এলাকা এখন অক্সিজেন স্বল্পতায় ভুগছে। ১৯৬০ এর দশকে এই সংখ্যা ছিল মাত্র ৪৫টি।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, কৃষি খামার ও শিল্প কারখানা থেকে নাইট্রোজেন এবং ফসফরাস সমুদ্রের পানিতে গিয়ে মেশার কারণেই পুষ্টি-দূষণের ঘটনা ঘটছে। সেই সঙ্গে এসব কারণে সমুদ্রের পানিতে থাকা অক্সিজেনের ক্ষেত্রেও প্রভাব ফেলছে বলে বিজ্ঞানীরা জানতেন। এতদিন ধারণা করা হতো, এটি শুধুমাত্র উপকূলীয় এলাকার সমুদ্রেই প্রভাব ফেলছে।

কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এই হুমকির মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। গ্রিনহাউজের কারণে যেহেতু কার্বন-ডাই অক্সাইড বৃদ্ধি পাচ্ছে, তার ফলে সমুদ্রগুলোকে আরো বেশি তাপ শুষে নিতে হচ্ছে। ফলে উষ্ণ পানি কম অক্সিজেন ধরে রাখতে পারছে।

বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, ১৯৬০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে সমুদ্রের পানি থেকে ২ শতাংশ অক্সিজেন হারিয়ে গেছে। সারা বিশ্বের বিবেচনায় এটা খুব বেশি মনে নাও হতে পারে। কিন্তু কোন কোন গ্রীষ্মপ্রধান এলাকায় এই হার ৪০ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে।

এমনকি খুব সামান্য পরিবর্তনও সামুদ্রিক জীবনযাত্রার ওপর বড় ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে। যেমন কম অক্সিজেন সমৃদ্ধ পানি জেলিফিশের মতো প্রাণীর জন্য উপকারী হতে পারে, কিন্তু টুনা মাছের মতো বড়, দ্রুত সাতার কাটতে পারে, এমন প্রাণীর জন্য সেটি ভালো নয়।

``অক্সিজেন হারিয়ে যাওয়ার ব্যাপারটি আমরা জানতাম, কিন্তু সেটার সঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের সম্পর্ক এবং কতটা হুমকি তৈরি করছে সেটা আমাদের জানা ছিল না,`` বলছেন আইইউসিএনের কর্মকর্তা মিন্না ইপস।

``গত ৫০ বছরে অক্সিজেন কমে যাওয়ার হার যে শুধুমাত্র চারগুণ হয়ে গেছে তাই নয়, এমনকি যেসব জায়গায় কার্বন নিঃসরণ কম হয়েছে সেখানেও মহাসাগর থেকে অক্সিজেন কমে যাচ্ছে।``
গবেষকরা বলছেন, এর ফলে টুনা, মার্লিন, হাঙ্গরের মতো অনেক প্রাণী সমুদ্রের উপরের দিকে এসে থাকতে শুরু করেছে। কিন্তু এ কারণে এসব প্রাণী মাছ-শিকারিদের সহজ টার্গেটে পরিণত হওয়ার ঝুঁকিতেও পড়ে যাচ্ছে।

বিশ্বের দেশগুলো যদি কার্বন নিঃসরণের ক্ষেত্রে বরাবরের মতো মনোভাব দেখিয়ে যায়, তাহলে ২১০০ সাল নাগাদ মহাসাগরে অক্সিজেনের মাত্রা ৩-৪ শতাংশ কমে যাবে। গ্রীষ্মপ্রধান এলাকাগুলোয় এই হার হবে আরো অনেক বেশি। বেশিরভাগ ক্ষতি হবে সমুদ্রের প্রথম একহাজার মিটারের মধ্যে, যেখানে সবচেয়ে বেশি জৈববৈচিত্র রয়েছে। কম মাত্রার অক্সিজেনের ফলে গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য চক্রের মতো মৌলিক ক্ষেত্রেও হুমকি তৈরি হবে।

``আমরা যদি (সাগর থেকে) অক্সিজেন হারিয়ে ফেলি, তাহলে সেখানে প্রাণীগুলোর আবাসস্থল নষ্ট হবে, জৈববৈচিত্র নষ্ট হবে এবং আরো বেশি জেলিফিশের জন্য সহায়ক পরিবেশ তৈরি হবে,`` বলছেন মিন্না ইপস।

``এটা সেই সঙ্গে মহাসাগরের শক্তি এবং জৈব রাসায়নিক চক্র পাল্টে দেবে। ফলে আমরা এখনো জানি না, এসব জৈববৈচিত্রের এবং রাসায়নিক পরিবর্তন মহাসাগরের ভেতরে কী ঘটাবে?`` সমুদ্রে পরিবর্তনের এসব তথ্য বিশ্ব নেতাদের কাছে তুলে ধরা হচ্ছে।

``মহাসাগরের অক্সিজেন কমে যাওয়ায় সমুদ্রের তাপমাত্রা ও অ্যাসিড বেড়ে যাওয়ার ফলে এর মধ্যেই ক্ষতির মুখে পড়েছে সমুদ্রের পরিবেশ,`` বলছেন গবেষণাটির সহ-লেখক ও আইইউসিএনের গবেষক ড্যান ল্যাফোলে।

``আমাদের ব্যাপকভাবে কার্বন ডাই-অক্সাইড নিঃসরণ কমাতে হবে। সেই সঙ্গে কৃষি খামার ও অন্যান্য উৎসের কারণে সমুদ্রে যে পুষ্টি-দূষণ হয় সেটাও বন্ধ করতে হবে।`` খবর: বিবিসি

 

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর