মঙ্গলবার ১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ৭:১৯ এএম


ভিসিকে দুর্নীতিবাজ বলা সরকারের জন্য কঠিন’

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২:১৬, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে পদ ছাড়তে হয়েছে। এবার একই অভিযোগে উঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে গবেষক, লেখক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক আফসান চৌধুরী বলেন, দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল যখন প্রকট হয় তখন দুর্নীতির ঘটনা প্রকাশ পায়। যা সরকারের জন্যেও বিব্রতকর হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার তখন কিছু ব্যবস্থা নেয়।

রোববার গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন তিনি।

আফসান চৌধুরী জানান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিও ক্ষমতাসীন সরকারের লোক আর ছাত্রলীগও সরকারের। চাঁদাবাজিতো প্রতিষ্ঠিত, চাঁদাবাজি কখন না ছিলো? যখন ভিসির বিরুদ্ধে বলা হলো তিনি দুর্নীতিতে অংশ নিয়েছেন তখন সরকারের জন্য বিব্রতকর অবস্থার সৃষ্টি হলো। সরকারে দুর্নীতির দুইটা পক্ষ হয়ে গেল। ভিসিকে দুর্নীতিবাজ বলা সরকারের জন্য কঠিন।

প্রসঙ্গত, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য ১ হাজার ৪৪৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সেই উন্নয়ন প্রকল্পে বরাদ্দের ৪-৬ পারসেন্ট চাঁদা দাবি করেছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। ৮ আগস্ট রাতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের সঙ্গে তার বাসভবনে দেখা করে এই চাঁদা চান দুই নেতা। এরপর একই অভিযোগে এবার একই অভিযোগে ফেঁসে যাচ্ছেন জাবি উপাচার্য।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

 

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর