বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ৬:২৯ এএম


ভর্তি পরীক্ষার ফলে অনিয়ম, মেধা তালিকায় অকৃতকার্যরা

এডুকেশন বাংলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২২, ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ সেশনের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় `এ` ইউনিটের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির শর্ত পূরণ না করেও ফলাফলে ২৩ শিক্ষার্থীর তালিকায় স্থান পাওয়াসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

২৬ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে কলা অনুষদের `এ` ইউনিটের ফলাফল প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে `এ` ইউনিটে ১৫৫ আসনের কথা উল্লেখ থাকলেও দুই শিফট মিলিয়ে মেধা তালিকায় প্রকাশ করা হয়েছে ২০৫ জন শিক্ষার্থীর তালিকা। যেখানে ওই ইউনিটের মোট আসন থেকেও উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫০ জন বেশি।

এ ছাড়া উত্তীর্ণ হতে হলে শিক্ষার্থীকে এমসিকিউ পরীক্ষায় ইংরেজি অংশে ৩০ নম্বরের মধ্যে নূ্যনতম ১২ নম্বর ও লিখিত পরীক্ষায় ইংরেজিতে ১৫ নম্বরের মধ্যে ৬ নম্বর পাওয়ার শর্ত থাকলেও প্রকাশিত ফলাফলে এই নিয়ম ভেঙেই ফলাফল প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এই ইউনিটের প্রথম শিফটের প্রকাশিত ফলাফলে ২য় স্থান অধিকারী শিক্ষার্থী মো. রবিউল ইসলাম (রোল: ১৫০২৪) লিখিত পরীক্ষায় ৫.০০, ২য় শিফটের লিখিত পরীক্ষায় প্রমিত সরকার (রোল: ১৬৩৮১) ৫.০০ পেয়ে মেধা তালিকায় রয়েছেন।

প্রথম ও দ্বিতীয় শিফটের অপেক্ষমাণ তালিকায় আমিনা নুসরাত (রোল: ১৬০৬১), আসিফ আনজুম অর্ণব (রোল: ১৬৪২৩), সানজিদা নওশিন ঐশী (রোল-১১৫৯৩), রায়হানা আকন্দ (রোল-১১৬৭৪), জান্নাতুল মাওয়া (রোল-১৫৯১৬). লামিয়া আমরিন পাতা (রোল-১২৬১৭) সহ অনেক শিক্ষার্থীর ফলাফলে দেখা গেছে, লিখিত পরীক্ষায় ৫.০০ বা ৫.৫০ পেয়েও তাদের নাম রয়েছে। এর মধ্যে দু`জন মেধা তালিকায় রয়েছেন।

অপরদিকে `বি` ইউনিটের প্রথম (সকাল) শিফট পরীক্ষা থেকে মেধা তালিকায় ১০৯ জনকে নেওয়া হলেও দ্বিতীয় (বিকেল) শিফট থেকে নেওয়া হয় ৫১ জনকে। এমন অনিয়মকে ঘিরেও ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ তুলেছেন।

রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীর জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়গুলো খতিয়ে দেখবে।

এডুকেশন/কেআর

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর