সোমবার ১৯ আগস্ট, ২০১৯ ১১:২৯ এএম


বেসরকারি ২৫ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে সতর্কতা জারির চিন্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:১৮, ৫ আগস্ট ২০১৯  

দেশের ২৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে সতর্কতা জারির চিন্তাভাবনা চলছে। এ ব্যাপারে ঈদের আগেই বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) গণবিজ্ঞপ্তি আসছে। ভর্তি মৌসুম সামনে রেখে শিক্ষার্থীদের সচেতন করতেই এ বিজ্ঞপ্তি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। চিহ্নিত এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কয়েকটির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ক্যাম্পাস চালানোর অভিযোগ আছে। কোনোটির বিরুদ্ধে আছে অননুমোদিত প্রোগ্রাম চালানোর অভিযোগ। কয়েকটি আবার শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের নির্দেশপ্রাপ্ত।

সনদ বাণিজ্যসহ নানা অপরাধে কয়েকটি অভিযুক্ত এবং বন্ধ ঘোষিত। কিন্তু উচ্চ আদালত থেকে স্থগিতাদেশ নিয়ে সেগুলো চলছে। মালিকানা দ্বন্দ্বের অভিযোগও কয়েকটির বিরুদ্ধে। বন্ধের সুপারিশপ্রাপ্তও আছে কয়েকটি।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, যেসব বিশ্ববিদ্যালয় প্রশ্নবিদ্ধ, আইন লঙ্ঘন করে প্রোগ্রাম ও ক্যাম্পাস চালাচ্ছে সেগুলোতে শিক্ষার্থীরা যাতে ভর্তি না হন সেজন্য গণবিজ্ঞপ্তির চিন্তা করছি। আমাদের মূল লক্ষ্য কেউ যেন কোথাও আন্দাজে ভর্তি হয়ে প্রতারিত না হয়, সে ব্যাপারে সজাগ করা। তিনি বলেন, এ ধরনের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলে ছাত্রছাত্রীরা বিপদে পড়বে। তাদের সনদ বৈধ হবে না।

সংস্থাটির সদস্য (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক ড. মো. আখতার হোসেন বলেন, গণবিজ্ঞপ্তি ইউজিসির রুটিন কাজের একটি। ঈদের আগেই বিজ্ঞপ্তিটি জারি করব। কর্মকর্তারা বলছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ব্যয় অনেক। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা যাতে প্রতারিত না হয়, সেজন্যই এ গণবিজ্ঞপ্তি। এতে বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে তথ্য যাচাইয়ের নির্দেশনা থাকে। কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলে বা সনদ নিলে তা কাজে লাগে না।

এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয় বা ইউজিসি কোনো দায় নেবে না। কেননা, চাকরিদাতারা প্রায়ই ইউজিসি থেকে সনদ সত্যায়ন করে থাকে। কেউ যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য শিক্ষাবর্ষের আগেই তথ্য জানানোর ব্যবস্থা করা হয়।

গণবিজ্ঞপ্তি সংস্থার ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। তবে ওই বিজ্ঞপ্তি থেকে নাম কাটাতে প্রভাবশালীরা তৎপর রয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত কেউ লাভবান হবে না বলে জানিয়েছেন ইউজিসি চেয়ারম্যান।

গণবিজ্ঞপ্তিতে ভিসি, প্রোভিসি ও কোষাধ্যক্ষ না থাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ব্যাপারেও সতর্ক করা হবে। কেননা, বাংলাদেশে এখনও বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা বৈধ নয়। সনদে স্বাক্ষরের দায়িত্ব ভিসির। তাই যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি নেই সেগুলোতে সনদের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে থাকে।

১০৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ৯৫টির কার্যক্রম চালু আছে। এ চালু বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ২৫টির ব্যাপারে বিজ্ঞপ্তি আসবে। এ মধ্যে নতুন ৯টির কার্যক্রমই শুরু হয়নি। এগুলো হচ্ছে- ঢাকার রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জের রূপায়ন একেএম শামসুজ্জোহা বিশ্ববিদ্যালয়, জেডএনআরএফ ইউনিভার্সিটি অব ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সেস, রাজশাহীর আহছানিয়া মিশন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহীর শাহ মখদুম ম্যানেজমেন্ট ইউনিভার্সিটি, খুলনা খান বাহাদুর আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশালের ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটি, ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটি এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইউনিভার্সিটি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি কর্মকর্তারা জানান, অনুমোদন পাওয়ার পরে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর জন্য অনুমতি নিতে হয়। এগুলো সেই অনুমতি পায়নি।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর