বৃহস্পতিবার ২২ আগস্ট, ২০১৯ ১:১৯ এএম


বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোয় শৃঙ্খলা ফেরাতে নতুন উদ্যােগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:৪৩, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ০৮:৪৪, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

সরকার বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোয় শৃঙ্খলা ফেরানার জন্য বড় ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনা নীতিমালা ২০১১ (সংশোধিত) এবং বিএমডিসি স্বীকৃত বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর ৫১টি তথ্য চেয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে এসব তথ্য পাঠানোর জন্য বেসরকারি সব মেডিক্যাল কলেজ অধ্যক্ষদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরপর কলেজ থেকে পাওয়া ওই সব তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষ কমিটি সরেজমিনে যাচাই করবে।

গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে এসংক্রান্ত একটি আদেশ দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে যে ৫১টি শর্তের বিষয়ে মন্ত্রণালয় তথ্য জানতে চেয়েছে এর মধ্যে দেশের বেশির ভাগ বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ ওই শর্তগুলো যথাযথভাবে মানেনি।

জানা যায়, অনেক কলেজের নামে নিজস্ব জমি নেই, নিয়মিত অডিট করা হয় না, সরকারের নিয়ম না মেনে নিজেদের ইচ্ছামাফিক পরিচালনা, আর্থিক দুর্নীতি, বিএমডিসি নিয়ম মেনে শিক্ষক নিয়োগ না দেওয়াসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতিতে ডুবে আছে দেশের অনেক বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ। সেখানে প্রতিবছর শিক্ষার্থী ভর্তি করা হলেও রোগীর সংখ্যা খুব কম। প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা না থাকায় সেখানে রোগীরা যেতে চায় না। অথচ ভর্তি নিয়ে জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন কলেজের বিরুদ্ধে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রামের বেসরকারি বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে পরিদর্শন ও শিক্ষার্থী পড়াতে যাওয়া কয়েকজন শিক্ষক বলেন, সরকারের এই পদক্ষেপ যুগান্তকারী। আগে বিক্ষিপ্তভাবে দুয়েকটি কলেজে স্থায়ী জমি, ভর্তিসহ বিভিন্ন অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা নিয়ে বেসরকারি কলেজে তদন্ত হলেও এ রকম বড় পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। চট্টগ্রামে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর মধ্যে কয়েকটির নিজস্ব জমি নেই। একই ক্যাম্পাসে একাধিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যা থাকতে পারে না। গভর্নিং বডিতে (পরিচালনা কমিটি) থাকলেও আর্থিক বিষয়টি অন্যরা নিয়ন্ত্রণ করে। প্রায় বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের অডিট হয় না। মানসম্মত শিক্ষক-চিকিৎসক নেই। বিএমডিসির আদেশ-নির্দেশও মানা হয় না।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর