শনিবার ২৫ মে, ২০১৯ ১৬:৪৯ পিএম


বাবার বিয়ে ঠেকাতে এসে হামলার শিকার জাবি ছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:১০, ৬ মে ২০১৯  

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় বাবার বিয়ে ঠেকাতে এসে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীসহ ছয়জন স্থানীয়দের হামলার শিকার হয়েছেন। পরে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ওই বাবাসহ চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল রোববার রাতে উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের সবুজপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন-জাবির নাটক ও নাট্য তত্ত্ব বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী রিশা আইরিন, তার সহপাঠী গাজীপুর জেলার ক্যামেলিয়া চুঁড়া , জাবির বাংলা বিভাগের ছাত্র ও গাজীপুর জেলার রকিবুল হাসান, বগুড়ার সান্তাহারের আরিফ মেহেদী, ঢাকার মিরপুর এলাকার দিপংকর বড়ুয়া দিপ্ত ও ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার রেদোয়ান মাহফুজ।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সামাদ আজাদের (৭০) স্ত্রী নাজমুন্নাহার (৬০) পক্ষাঘাতগ্রস্থ হয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে হাঁটাচলা করতে পারেন না। তাকে আবদুস সামাদই দেখাশোনা করেন। সম্প্রতি তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করবেন-এমন খবর শুনে তার মেয়ে ছাত্রী রিশা আইরিন রোববার সন্ধ্যায় কয়েকজন সহপাঠীকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি আসেন। এরপর সন্ধ্যায় বিয়ের বিষয়টি নিয়ে বাবার সঙ্গে মেয়ের বাকবিতণ্ডা হয়।

এক পর্যায়ে রিশার সহপাঠীরা আবদুস সামাদকে লাঞ্চিত করেন। এ ঘটনা জানতে পেরে সামাদের আত্মীয় স্বজনরা স্থানীয়দের নিয়ে রিশাসহ তার সহপাঠীদের ওপর লাঠিসোটা নিয়ে হামলা করেন। এতে তারা আহত হন। পরে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

পরে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা হামলার ঘটনাটি তাদের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করেন। এরপর বিভিন্ন গ্রুপে তা ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি পুলিশের নজরে আসলে রোববার রাত ২টার দিকে তাড়াশ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে ওসি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ জিম্মায় তাদের ঠিকানায় পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।’

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর