শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ১২:৫৯ পিএম


বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সঙ্গে সব টিভি চ্যানেলের চুক্তি কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:৪৫, ১৮ মে ২০১৯  

রবিবার (কাল) বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’র সঙ্গে দেশের সব টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার চুক্তি হবে। এই চুক্তির মাধ্যমে সরকারী-বেসরকারী সব টেলিভিশন চ্যানেল তিন মাস ‘ফ্রি ফ্রিকোয়েন্সি’ পাবে। এরপর থেকে বিদেশী স্যাটেলাইটের মতো ভাড়া নির্ধারণ করবে স্যাটেলাইট কোম্পানি। তবে ওই ভাড়া কত হবে তা এখনও নির্ধারণ করেনি স্যাটেলাইট কোম্পানি। বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, চুক্তির পরে সব টিভি চ্যানেলই সম্প্রচারে যেতে পারবে। তবে ঠিক কবে থেকে সম্প্রচারে যাবে সে তারিখ ঘোষণা করবে তথ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের ঘোষণা অনুযায়ী বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ কারিগরি দিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছে। সম্প্রচারের জন্য গাজীপুরে গ্রাউন্ড স্টেশনে দিনরাত কাজ চলছে। তবে নির্ধারিত দিনে সব টিভি সম্প্রচারে নাও যেতে পারে। কারণ বিসিএসসিএলের সঙ্গে অনেক আগেই বেসরকারী ৭ টিভি চ্যানেল চুক্তি করে রেখেছে। সরকারী টেলিভিশনে ফ্রিকোয়েন্সি দেয়া সম্ভব হলেও বেসরকারী টেভিগুলোকে এখন পর্যন্ত ফ্রিকোয়েন্সি দেয়া সম্ভব হয়নি।

ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, রাষ্ট্রীয় তিন চ্যানেল বিটিভি ওয়ার্ল্ড, সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশিন ও বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্র পরীক্ষামূলক সম্প্রচার থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি পাচ্ছে। বিটিভি এক মাসেরও বেশি সময় আগে থেকেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে সেবা নিচ্ছে। বেসরকারী চ্যানেলগুলোর মধ্যে ইতোমধ্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে সময় টিভি, ডিবিসি নিউজ, ইন্ডিপেনন্ডেন্ট টিভি, এনটিভি, একাত্তর টিভি, বিজয় বাংলা ও বৈশাখী টিভি। এই চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের ট্রান্সমিশন ব্যবহার করতে পারবে। ৭ বেসরকারী টিভি চ্যালেন আমাদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। এখন বাকিগুলো চুক্তিবদ্ধ হচ্ছে। আগামীকাল (রবিবার) ত্রিশটি বেসরকারী চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সঙ্গে চুক্তি করবে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট আমাদের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। এখন আমরা গ্রাউন্ড স্টেশনে ঢুকতে পারছি। ফ্রিকোয়েন্সি দেখতে পাচ্ছি, যা গত মাসেও আমাদের হাতে ছিল না। আমাদের প্রকৌশলীরা দিনরাত গাজীপুরের গ্রাউন্ড স্টেশনে বিদেশী প্রকৌশলীদের সঙ্গে কাজ করছেন।

বিসিএসসিএল সূত্র জানায়, বেসরকারী চ্যানেলগুলো চুক্তি করলেও তারা বিদেশী স্যাটেলাইট এ্যাপস্টারের সংযোগও রেখে দিয়েছে। কারণ সেবা নেয়ার চুক্তি বাতিল করতে হলে তিন মাস আগে নোটিস দিতে হয়। জানুয়ারিতেই ওই নোটিস দেয়ার কথা ছিল বেসরকারী টিভি চ্যানেলগুলোর। নোটিসের তিন মাস পর থেকেই চ্যানেলগুলো অন্য যে কোন স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি নিতে পারবে। টেলিভিশনের ট্রান্সমিশন বিষয়ে ডিটিএইচ কোম্পানি রিয়ালভিউ’ও সম্প্রতি বিসিএসসিএলের সঙ্গে চুক্তি করেছে। ফলে অল্প সময়ের মধ্যেই তারা দেশী-বিদেশী মিলিয়ে ৪৮ টেলিভিশনের সম্প্রচার শুরু করবে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে। দেশী-বেসরকারী টিভি চ্যানেলগুলো বছরে বিদেশী স্যাটেলাইটকে ভাড়া বাবদ প্রায় ১১শ’ কোটি ডলার দিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে ফ্রিকোয়েন্সি নিলে ওই টাকা দেশেই থেকে যাবে।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর