মঙ্গলবার ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৯ পিএম


ফেসবুকে গুজব ছড়ানোয় বগুড়ায় শিক্ষক ও আইটি বিশেষজ্ঞ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:০৭, ৫ আগস্ট ২০১৯  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ও পদ্মা সেতু নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে বগুড়া সাইবার ক্রাইম ইউনিট সোমবার সকালে ২ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বগুড়া সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে একজন কলেজ শিক্ষক ও অন্যজন আইটি বিশেষজ্ঞ। এরা হলেন শহরের ঝোপগাড়ি এলাকার বাসিন্দা সোনাতলা ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক মাসুদুর রহমান টিটু এবং আদামদীঘি উপজেলার পশ্চিম ছাতনী গ্রামের আইটি বিশেষজ্ঞ বেনজুর আহম্মেদ।

বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূইয়া জানান, সাইবার পুলিশের মনিটরিং সেল একটি ফেসবুক একাউন্ট শুভেচ্ছা রহমান এবং একটি ফেসবুক পেজ সুন্দর ও বিষ্ময়কর ভিডিও অপটাইম টিভি থেকে গুজব ছড়ানোর তথ্য ও প্রমাণ পায়।

শুভেচ্ছা রহমান ফেসবুক একাউন্ট থেকে বলা হয় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মানুষকে গুম করাচ্ছে। সুন্দর ও বিষ্ময়কর ভিডিও অপটাইম টিভিতে বলা হয় পদ্মা সেতু তৈরিতে হাজার হাজার মানুষের মাথা প্রয়োজন। সাইবার ইউনিটের পক্ষ থেকে তদন্ত কালে আরো দেখা যায় যে, শুভেচ্ছা রহমান ফেসবুক একাউন্ট এর প্রোফাইল জুড়ে বিভিন্ন ধরনের উসকানিমূলক পোস্ট রয়েছে। সরকারকে নিয়ে নানা ধরনের কটূক্তিকর কথাবার্তাও করা হয়েছে। পুলিশকে গালিগালাজ করা নানা ধরনের ছবি ও ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে। যেসব পেইজ বেশি শেয়ার হয়েছে তার মধ্যে হাসিনার পতন চাই ও বাঁশের কেল্লা অন্যতম।

শুভেচ্ছা রহমান একাউন্ট থেকে শেয়ার করা পোস্টের মধ্যে রয়েছে ভারতীয় গোয়েন্দা দিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মানুষকে গুম করাচ্ছে। শুনুন একজন র‌্যাব কর্মকর্তার মুখ থেকে। সামনে ভয়ংকর দিন। আরো রয়েছে ডেঙ্গু বিষয়ক প্রশিক্ষণে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা কোটায় মালয়েশিয়া গেছেন। পদ্মা সেতু তৈরিতে খালেদা ও তারেকের মাথা লাগবে। গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরতন্ত্র নিপাত যাক, হাসিনার পতন চাই ইত্যাদি।

সুন্দর ও বিষ্ময়কর ভিডিও অপটাইম টিভিতে গত ৯ জুলাই একটি পোস্ট করা হয়। ভিডিও পোস্টে বলা হয় পদ্মা সেতুর জন্য মাথা সংগ্রহ করতে বাচ্চা চুরি করার সময় ধরা খেল মহিলা। এই ভিডিওটি রাতারাতি ১ লাখ ৫ হাজার বার সিন হয়। ২ হাজার ৮৩৮ বার শেয়ার হয়।

বগুড়া সাইবার ক্রাইমের ইন্সপেক্টর এমরান মাহমুদ তুহিন জানান, শুভেচ্ছা রহমান একাউন্টের আসল নাম মাসুদুর রহমান টিটু। আর সুন্দর ও বিষ্ময়কর ভিডিও অপটাইম টিভি পেজের এডমিন হলেন আইটি বিশেষজ্ঞ বেনজুর আহম্মেদ। তাদেরকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করার পর জিজ্ঞাসাবাদ কালে অপরাধের কথা স্বীকার করে নেন। পরে তাদেররকে আদালতের মাধ্যমে জেলা হাজতে পাঠানো হয়।

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর