শুক্রবার ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ৪:২১ এএম


প্রসঙ্গঃ সরকারি মাধ্যমিকে সিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নতি

মাহমুদ সালমী

প্রকাশিত: ০৮:৫১, ৬ আগস্ট ২০১৯  

স্বাধীনতার পর থেকে সরকারি মাধ্যমিকের শিক্ষকদের অন্যতম প্রধান দাবি ছিল সহকারী শিক্ষকদের ১ম শ্রেণীর(৯ম গ্রেড) গেজেটেড বাস্তবায়ন করা । কিন্তু সরকারি মাধ্যমিকের শিক্ষকদের আর ভাগ্যের উন্নয়ন হয়নি। যদিও উক্ত পদগুলোর সমপদ যথা- পিটিআই ইনস্ট্রাক্টর, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, সাব- রেজিস্টার, সমাজসেবা অফিসার, পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রথম শ্রেণির গেজেটেড পদে উন্নীত হয়। প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড (৯ম গ্রেড) বাস্তবায়নের দাবীতে বিভিন্ন সময়ে কর্মবিরতি, অনশন সহ আন্দোলন সংগ্রামের পরেও সফলতা আসেনি। অবশেষে ০৭/০২/১৮ খ্রি. নিয়োগবিধি সংশোধনের মাধ্যমে মোট পদের ৫০% পদ ১ম শ্রেণির গেজেটেড (৯ম গ্রেডে) পদ সৃষ্টি হয় যা এন্ট্রিপদ (১০০%) ৯ম গ্রেড বাস্তবায়নের পথ সুগম করে।

অতঃপর উক্ত পদে পদোন্নতির লক্ষে মাউশি খসড়া তালিকা তৈরি করে শিক্ষামন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করে। কিন্তু জ্যেষ্ঠতা নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতার কারণে শিক্ষামন্ত্রণালয় গত ১১এপ্রিল ১৯ খ্রি. মতামত চেয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে ১৫/০৫/১৯ খ্রি. আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভার নির্দেশনা অনুযায়ী ৩টি ক্যুয়ারি দিয়ে ২২/৫/১৯ খ্রি. শিক্ষামন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

২১/০৬/১৯ খ্রি. শিক্ষামন্ত্রণালয় মতামত চেয়ে মাউশিতে পাঠায়। মাউশি তাদের মতামত ০৪/০৭/১৯ খ্রি. শিক্ষামন্ত্রণালয়ে পাঠায়। ২৮/০৭/১৯ খ্রি. শিক্ষামন্ত্রণালয় থেকে জনপ্রশাসনে পাঠায়। এখন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত দিলেই পদোন্নতির বাঁধা দূর হবে। এক্ষেত্রে, "বিধি বিধান মেনে যেন নির্দেশনা দেওয়া হয়", যার যার অবস্থান থেকে সেই চেষ্টা করি। সমিতির নির্দেশনায় কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা করলে দ্রুত সফলতা আসবে বলে মনে করি। ধন্যবাদ।

লেখকের ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া

এডুকেশন বাংলা/এজেড

 

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর