শুক্রবার ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২২:০৬ পিএম


প্রসঙ্গ:বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনের মেধাতালিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২:৩০, ১২ আগস্ট ২০১৮  

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ গত ১০ জুলাই প্রথম থেকে ত্রয়োদশ নিবন্ধন সনদধারীদের মেধাতালিকা প্রকাশ করেছেন। ২০০৫ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ৬ লাখের ওপরে সনদপ্রাপ্ত হয়েছেন। সকলের মেধাতালিকা একসঙ্গে প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু এতে অনেক ত্রুটি লক্ষ করা গেছে—একই রোলে একাধিক ব্যক্তির নাম বা একই ব্যক্তির নাম একাধিকবার দেখা যায়। মৃত ব্যক্তিদের নামও তালিকায় রয়েছে।

এছাড়া যারা চাকরিতে বা অধ্যয়নরত তাদেরও তালিকায় রাখা হয়েছে। এ অবস্থায়, নিবন্ধনধারীরা দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। দীর্ঘদিন ধরে নিয়োগ বন্ধ থাকায় অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। যে উদ্দেশ্যে এনটিআরসিএ গঠন করা হয়েছিল, তাদের ধীর গতির কারণে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সমপর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি নিয়োগের ক্ষমতা ম্যানেজিং কমিটির কাছে হস্তান্তরের সুপারিশ করে। আর ম্যানেজিং কমিটির হাতে ক্ষমতা দেওয়া হলে শিক্ষাব্যবস্থায় ধস নামবে।

অনেকের নাম মেধাতালিকার সিরিয়ালের শেষের দিকে থাকায় হতাশায় ভুগছেন যে নিয়োগ হবে কি না। তবে যাঁর মেরিটলিস্টে সিরিয়াল ১২০০ তিনি প্রকৃতপক্ষে ৬০০ থেকে ৭০০ সিরিয়াল আশা করতে পারেন। কেননা অনেকে পরলোকগমন করেছেন, অনেকে বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন, অনেকে প্রবাসে আছেন, অনেকের একাধিক সনদও রয়েছে। মূলত মেধাতালিকা করা হয়েছে ১-১২তমদের রিটের রায় বাস্তবায়নের জন্য। কিন্তু মেধাতালিকা করা হয়েছে ১-১৩তম পর্যন্ত। যা রায়ের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। অন্যদিকে ত্রয়োদশ নিবন্ধনধারীরা বিসিএসের আদলে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। গেজেট ও পরিপত্র অনুযায়ী ত্রয়োদশ নিবন্ধনধারীদের একক নিয়োগ যুক্তিসঙ্গত। কেননা শূন্যপদ অনুযায়ী তাদের উত্তীর্ণ করা হয়েছে। ত্রয়োদশ নিবন্ধনধারীদের আলাদা মেধাতালিকা থাকার পরও তাদের নতুন মেধাতালিকায় সংযুক্ত করা হয়েছে, যা গেজেটবিরোধী।

২০১৮ সালের এমপিও নীতিমালা দ্রুত কার্যকর করলে প্রায় দেড় লাখ নিবন্ধনধারীর নিয়োগ হতে পারে। এখন প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে শূন্যপদ সংগ্রহ করে গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দ্রুত নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ দেওয়া হবে—এটাই একান্ত কামনা।

মুন্নাফ হোসেন: সহকারী শিক্ষক(ইংরেজি), মোহাম্মদ নগর উচ্চ বিদ্যালয়, ফুলবাড়িয়া, ময়মনসিংহ

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর