বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৪:৫১ এএম


পররাষ্ট্র সচিব হচ্ছেন মাসুদ বিন মোমেন

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:২৭, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কে হচ্ছেন পরবর্তী পররাষ্ট্র সচিব- মাসুদ বিন মোমেন নাকি রাবাব ফাতিমা? এমন প্রশ্নের বোধহয় এবার উত্তর মিলতে চলেছে। সচিব হওয়ার দৌড়ে আরও অনেকে থাকলেও এই দুজনই এগিয়ে ছিলেন। কূটনৈতিক পাড়ায় কানপাতলে এমনটাই শোনা যাচ্ছিল।

সরকারের উচ্চপর্যায়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রের বরাত দিয়ে একটি জাতীয় দৈনিক খবর প্রকাশ করেছে, বাংলাদেশের পরবর্তী পররাষ্ট্র সচিব হচ্ছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন।

এদিকে, জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি পদে যোগ দিচ্ছেন। রাবাবের নিয়োগ আদেশ এরই মধ্যে অনুমোদন হয়েছে। তবে চলতি মাসে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শেষ হওয়ার পর মাসুদ বিন মোমেনের নিয়োগ চূড়ান্ত হলে নতুন স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে রাবাব ফাতিমার যোগদানের পথ সুগম হবে।

মাসুদ বিন মোমেন বর্তমান পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন। তবে বর্তমান পররাষ্ট্র সচিবের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদ ডিসেম্বর পর্যন্ত রয়েছে। সূত্রটি জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরই মধ্যে মাসুদ বিন মোমেনকে পররাষ্ট্র সচিব নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছেন। এ মাসেই জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্ক যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ সফর শেষ হওয়ার পর মাসুদ বিন মোমেনের পররাষ্ট্র সচিব পদে নিয়োগের বিষয়টি আরও স্পষ্ট হবে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী পররাষ্ট্র সচিব হলেন এম শহীদুল হক। তিনি পররাষ্ট্র ক্যাডারের ১৯৮৪ ব্যাচের কর্মকর্তা। চাকরি-জীবনের বেশির ভাগ সময় লিয়েনে আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থায় (আইওএম) কর্মরত ছিলেন। ২০০১ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত আইওএমের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। তারপর পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে আছেন ৬ বছর ধরে। ভারতসহ বিভিন্ন দেশে পররাষ্ট্র সচিব পদে সাধারণত তিন বছরের বেশি সময় কাউকে নিয়োগ দেয়া হয় না। শহীদুল হক দীর্ঘদিন ধরে পররাষ্ট্র সচিব থাকায় পররাষ্ট্র ক্যাডারের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা যারা এ পদের প্রত্যাশী ছিলেন, তাদের অনেকেই বঞ্চিত হয়েছেন। এ নিয়ে পররাষ্ট্র ক্যাডারে চাপা ক্ষোভ ও অসন্তোষ আছে। তবে আগামী ডিসেম্বরে তিনি অবসরে যাচ্ছেন।

মাসুদ বিন মোমেন জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত থাকাকালে দু’দেশের সম্পর্ক খুবই জোরদার হয়। ওই সময়ে পশ্চিমারা শেখ হাসিনার সরকারের ওপর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলেও জাপান সমর্থন করে। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবেও রোহিঙ্গা ইস্যু সামাল দিতে বেশ দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, মাসুদ বিন মোমেন পররাষ্ট্র ক্যাডারের ১৯৮৫ ব্যাচের কর্মকর্তা। ৫ম বিসিএস এর মাধ্যমে পেশাদার কূটনীতিক হিসেবে চাকরিজীবন শুরু করা মাসুদ বিন মোমেন তার দীর্ঘ ক্যারিয়ারে নিউইয়র্ক, ইসলামাবাদ, সার্ক সেক্রেটারিয়েট এবং পররাষ্ট্র সচিবের দপ্তরের পরিচালকসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে সচিব পদ মর্যাদায় রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালনকারী ওই কর্মকর্তার বাড়ি ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলায়।

এডুকেশন বাংলা/ এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর