সোমবার ১৯ অক্টোবর, ২০২০ ২২:০১ পিএম


নেত্রকোনায় শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে বীণাপানি বিদ্যাপীঠ

নেত্রকোনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১:১০, ১ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ২১:১২, ১ সেপ্টেম্বর ২০২০

নেত্রকোনা জেলা সদরের বাংলা বাজার সংলগ্ন অবস্থিত দরিদ্র মেধাবী, কোমলমতি শিশুদের মাঝে অবৈতনিকভাবে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে বীণা পানি বিদ্যাপীঠ।  এলাকার অবসরপ্রাপ্ত রাজস্ব কর্মকর্তা এবং এনজিও উপদেষ্ঠা অসীম কুমার রায় ২০১১ সালে বীণাপানি বিদ্যাপীঠ স্ব-উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করেন। শিক্ষকদের বেতন, শিক্ষার্থীদের বই, খাতা, কলম, পোষাক প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব তহবিল থেকে সরবরাহ করে আসছে।

বর্তমানে এ বিদ্যাপীঠে নার্সারী থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান কার্যক্রম রয়েছে। প্রধান শিক্ষকসহ ৮জন সহকারী শিক্ষক নিয়মিত পাঠদান করে আসছেন। প্রতি শ্রেণিতে ২০ জন করে মোট ১৪০ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। প্রত্যেক শিক্ষার্থীকেই বছরের শুরুতে ড্রেস, জুতা, খাতা, কলম, শীতের কম্বল, ছাতা প্রতিষ্ঠানের তহবিল থেকে দেওয়া হয়। প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলে সম্পূর্ণ অবৈতনিকভাবে।

বীণাপানি বিদ্যাপীঠের সহকারী শিক্ষিকা সনি আক্তার জানান, প্রতিষ্ঠানে সহকারী শিক্ষক আরও নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। পাঠদান, খাতা দেখা, প্রশ্নপত্র তৈরির কাজে প্রচুর শ্রম দিতে হয়। উদীয়মান শিক্ষার্থীদের মেধা ধরে রাখার জন্য প্রতিষ্ঠানটিতে আরও শ্রেণি বাড়ানো একান্ত আবশ্যক বলে মনে করি।


http://www.educationbangla.com/media/PhotoGallery/2019March/b120200901151154.jpg
বীণাপানি বিদ্যাপীঠের শিক্ষার্থীর অভিভাবক রফিকুল ইসলাম বলেন, বীণাপানি বিদ্যাপীঠে আরও শ্রেণি বাড়ানো প্রয়োজন। যাতে এখান থেকে পিএসসি পাশ করা শিক্ষার্থীরা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অনুকূল ও আদর্শ পরিবেশে অর্জন করতে পারে।

বীণাপানি বিদ্যাপীঠের প্রধানশিক্ষক অজিত সিংহ জানান, শিক্ষক যদি নিবেদিত হয়, আত্মপ্রত্যয়ী হয় তাহলে শিক্ষার্থীরা যেমন আলোকিত মানুষ হয়ে গড়ে উঠে। অপরদিকে বিদ্যালয়ের সুনাম যশ বৃদ্ধি পায়। প্রধানশিক্ষকের ভূমিকা এ ক্ষেত্রে মূখ্য। এভাবেই সম্ভব একটি আদর্শ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা।

বীণা পানি বিদ্যাপীঠের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি অসীম কুমার রায় জানান,  এলাকার থেকে দরিদ্র শিশুদের মেধাবী হিসেবে গড়ে তোলাই আমার মূল লক্ষ্য। যাদের অভিভাবকরা মেধা থাকার পরও অর্থ ও উন্নত পরিবেশের অভাবে শিক্ষার্থীদের আদর্শ অর্জন করাতে ব্যর্থ হন সে সব শিক্ষার্থীদের শিক্ষা অর্জনের জন্যই আমার এ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার একমাত্র উদ্দেশ্য।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর