বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০:১৭ এএম


ধর্ষণচেষ্টা: মোহাম্মদপুর কলেজের সাবেক অধ্যক্ষের জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:৫৬, ৩১ অক্টোবর ২০১৯  

ধর্ষণের মামলাকারী এক কলেজছাত্রীকে ফের ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার সাময়িক বরখাস্ত উপ-সচিব ও মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এ কে এম রেজাউল করিম রতন জামিন পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশীদ শুনানি শেষে পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় তাকে জামিন দেন।

এদিকে আসামির জামিনে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাদী।

মামলা দায়েরকারী ওই কলেজছাত্রী বলেন, “আসামি জামিনে বের হলে আমার বাসায় হামলা করবে। আমি যথেষ্ট নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আসামি জেলে থাকা অবস্থায় তার পরিবারের লোকজন মামলা তুলে নিতে হুমকি-ধামকি দিয়েছে। আর আসামি কারাগারে বের হলে যে কি করবে, জীবনহানির আশঙ্কা করছি।”

তিনি বলেন, “আসামির আইনজীবীরা আদালতকে বলেছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে আমি একটি চিঠি জমা দিয়েছি, সেখানে আমি নাকি বলেছি তার যেন শাস্তি না হয়। কিন্তু চিঠিটি আমার দেওয়া না এবং স্বাক্ষরও আমার নয়। আমি আসামির বিরুদ্ধে জাল-জালিয়াতির মামলা করব।”

বাদীপক্ষের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ধর্ষণচেষ্টা মামলায় সিএমএম আদালত থেকে জামিনের প্রথা এবং রীতি নাই। নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল অথবা হাই কোর্ট জামিন দিতে পারেন। অনিয়মের মাধ্যমে এ আদালত থেকে আসামির জামিন হয়েছে।

আসামির জামিন বাতিলের পাশাপাশি বাদীর চিঠি এবং স্বাক্ষর জাল করায় আসামির বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তারা।

গত ১২ অক্টোবর রাজধানীর মধুবাজার থেকে রেজাউল করিম রতনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এক বছর আগে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব রতনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করেছিলেন ওই কলেজছাত্রী। মামলাটি এখন ঢাকার একটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। এই মামলা করার আগের মাসে রতনের বিরুদ্ধে তাকে মারধরের অভিযোগে আরেকটি মামলা করেছিলেন ওই ছাত্রী।

দুই মামলাতেই ধানমন্ডি থানা পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়ার পর রতনকে সাময়িক বরখাস্ত করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এর জের ধরেই বিবাহিত রতন তাকে ফের ধর্ষণের চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ করেছেন ওই ছাত্রী।

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর