বৃহস্পতিবার ০৯ জুলাই, ২০২০ ১১:৫৩ এএম


দ্রুতসময়ে প্রাথমিক শিক্ষকগণের চাকুরী স্থায়ীকরণের সিদ্ধান্ত

আফতাব তাজ

প্রকাশিত: ০৯:৫০, ২১ মার্চ ২০২০   আপডেট: ০৯:৪৯, ২২ মার্চ ২০২০

দ্রুতসময়ে প্রাথমিক শিক্ষকগণের চাকুরী স্থায়ীকরণসহ ১৫টি বিষয় বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

বৃহষ্পতিবার (১৯ মার্চ) সকল বিভাগীয় উপপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারগণের অংশগ্রহণে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মালিটিপারপাস কনফারেন্স কক্ষে `মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণ` সম্পর্কিত কর্মশালায় এ সিদ্ধান্তসমূহ নেয়া হয়। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম আল হোসেন ।

সভাপতিত্ব করেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: ফসিউল্লাহ । সভায় প্রথমেই সচিব এবং মহাপরিচালকের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদের উদ্দ্যেশে লেখা পত্রটি অতি অল্পসময়ে শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছানোর জন্য ডিপিইও/এডিপিইও/ইউইও/এইউইও/ প্রধান শিক্ষক এবং সহকারি শিক্ষকগণকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানানো হয়।

সভায় ১৫টি বিষয় বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়,  এগুলো হলো -১) প্রমাপ অনুযায়ী পরিদর্শন করা এবং পরিদর্শনের প্রাপ্ত তথ্যের উপর ফলোআপ করা। ২) শ্রেণি পাঠদানকালে শ্রেণি কক্ষে মোবাইল ব্যবহার না করা। ৩) সামাজিক মাধ্যম যেমন ফেইজবুক, টুইটার প্রভৃতিতে কোনরকম উস্কানিমূলক/অকর্মচারীসূলভ পোস্ট না করা।৪) সঠিকসময়ে ও দ্রুতসময়ে শিক্ষকগণের চাকুরী স্থায়ীকরণ করা। ৫) চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকগণকে স্থায়ী পদোন্নতির লক্ষে তালিকা দ্রুত প্রেরণ করা।৬) SLIP , প্রাকপ্রাথমিক শ্রেণিকক্ষ সজ্জিতকরনসহ অন্যান্য মেরামত কাজের অর্থ সঠিক সময়ে ও সঠিকভাবে ব্যয় করা। ৭) বিদ্যালয়ে প্রদানকৃত ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া ব্যবহার করে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করা।
৮) ই-নথির কার্যক্রম সক্রিয় করে অফিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালনা করা। ৯) নীডবেইজড সাব-ক্লাস্টারের সহায়িকা সঠিক নিয়মে তৈরি করা। ১০) সকল স্তরেএপিএ এর লক্ষমাত্রা সঠিক সময়ে বাস্তবায়ন করা। ১১) ই-প্রাইমারী সিস্টেমে যাবতীয় তথ্য আপডেট করা।
১২) যে কোন তথ্য সঠিক সময়ে নির্ভূলভাবে উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে প্রেরন করা।১৩) এপিএসসিএর ছকটি সঠিকভাবে পূরণ করা। ১৪)ওয়ান ডে ওয়ান ওয়ার্ড কর্মসূচি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা।১৫) শতভাগ শির্ক্ষাথীদেরকে সাবলীলভাবে পড়ানোর দক্ষতা অর্জন করাতে হবে। প্রতিদিন সকল ছাত্র/ছাত্রীদেরকে এক পৃষ্ঠা হাতের লেখা দিতে হবে এবং নিয়মিত তা মূল্যায়ন করতে হবে।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর