সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৬:০৭ পিএম


সাত সরকারি কলেজ নিয়ে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান শিগগিরই'

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:১৪, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১০:১৫, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অধিভুক্ত ৭ সরকারি কলেজ নিয়ে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান শিগগিরই আসছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। তিনি সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের হতাশ না হয়ে ধৈর্য ধারণের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কথা শুধু সভা সেমিনারে আলোচনা করলে হবে না। বাস্তব জীবনে তা প্রয়োগ করতে হবে। তাহলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে পারব। শেখ হাসিনার সৈনিক তারাই, যারা দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের পাশে ছিল। আমরা বঙ্গবন্ধু আদর্শ বুকে ধারণ করি এবং লালন করি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের হতাশ না হয়ে মনোযোগ দিয়ে নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা চালিয়ে যেতে বলেছেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, শুধু ফেসবুক চালালে হবে না, আমাদেরকে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তির ব্যবহার করতে হবে। তাহলে আমরা সমৃদ্ধশালী দেশে রূপান্তরিত হতে পারব। ফেসবুকে ছবি দিলেই দক্ষতার প্রমাণ হয় না।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, তিতুমীর কলেজের উপাধ্যক্ষ ড. মোসা. আবেদা সুলতানা, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক অধ্যাপক মালেকা আক্তার, শোকসভার আহ্বায়ক ও পদার্থবিজ্ঞানের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. রমা বিজয় সরকার, কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রিপন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মোড়লসহ কলেজের সাবেক ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।

এসময় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে শিক্ষা উপমন্ত্রীর হাতে ১১ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি তুলে দেওয়া হয়।

এছাড়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা ১৭ আসনের সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান (ফারুক)। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে শুধু আলোচনা করতে কোন মাস বা দিন লাগে না। প্রতিদিনই তাকে নিয়ে আলোচনা করা যায়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বীজ তরুণদের মধ্যে বুনে দিতে হবে।

পরে ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ রচনা ও হামদ-নাত প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। রচনায় ২য় পুরস্কার পান তিতুমীর কলেজে সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমেদ। অনুষ্ঠান শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর