বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ৬:১৮ এএম


তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির চাকরিতে অভিন্ন নিয়োগ কমিশন প্রয়োজন

জমাতুল ইসলাম পরাগ

প্রকাশিত: ১০:২১, ৬ নভেম্বর ২০১৯  

গত ২৪ অক্টোবর অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ কর্তৃক প্রকাশিত এক পরিপত্রে জানানো হয়েছে, এখন থেকে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির (১৩ থেকে ২০তম গ্রেড) সব ধরনের নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র প্রণয়ন, পরীক্ষা গ্রহণ প্রভৃতিসহ অন্যান্য কার্যক্রম নিজ নিজ অধিদফতর বা মন্ত্রণালয়কে সম্পন্ন করতে হবে।

এতদিন সেসব নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র প্রণয়ন, পরীক্ষা গ্রহণ প্রভৃতি বিভিন্নি সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে দিয়ে সম্পাদন করা হতো। সরকার কেন বা কোন যুক্তিতে সেই প্রথা থেকে বর্তমানে সরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা পরিপত্রে উল্লেখ করা করা হয়নি।

নিয়োগ পরীক্ষা বিষয়ে সরকারের এ সিদ্ধান্ত বাস্তব প্রেক্ষাপটে কতটা স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য হবে, তা নিয়ে চাকরি প্রত্যাশীদের মধ্যে এখনই প্রশ্ন উঠেছে। অতীতের বেসরকারি স্কুল-কলেজের নিয়োগ প্রক্রিয়া নিজেদের অধীনে পরিচালিত হওয়ার ক্ষেত্রে দেখা গেছে, পরীক্ষায় কৃতকার্য হওয়ার চেয়ে কোন প্রার্থী উক্ত প্রতিষ্ঠানকে কত বেশি টাকা দিতে পারবে- তার ভিত্তিতে নির্ধারিত হতো প্রার্থীর মেধাক্রম বা মেধামান। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমন জঘন্য দুর্বৃত্তায়ন থেকে চাকরি প্রত্যাশীদের মুক্তি দিতে দেরিতে হলেও বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষকে নিয়োগ সুপারিশের দায়িত্ব দিয়ে সরকার একটি সুচিন্তিত উদ্যোগ নিয়েছে।

বর্তমান পরিপত্র অনুযায়ী এখন নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান যদি নিজেরাই নিজেদের পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রশ্নপত্র প্রণয়ন পদ্ধতির সঙ্গে যুক্ত হয়, তাহলে সেই নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস, নিয়োগ বাণিজ্য ছাড়াও স্বজনপ্রীতির মতো ঘটনা ঘটবে কিনা, সরকারকে ভেবে দেখতে হবে।

সম্প্রতি তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগ পরীক্ষার অভিন্ন মানবণ্টনের প্রশ্ন প্রণয়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেহেতু সব সরকারি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ পরীক্ষার একই সিলেবাস হবে, তাহলে কেন একটি এক ও অভিন্ন নিয়োগ কমিশন গঠন সম্ভব নয়?

পিএসসি কিংবা এনটিআরসির মতো একটি অভিন্ন কমিশনের হাতে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন, খাতা মূল্যায়ন, সুপারিশ করার ক্ষমতা অর্পণ করে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগ কমিশন গঠন করা কি খুব বেশি অযৌক্তিক হবে? এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

নগুয়া, হোসেনপুর রোড, কিশোরগঞ্জ

 

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর