মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২:৫৭ এএম


তুরস্কে বৃত্তি, জরুরি ১০ তথ্য

এডুকেশন বাংলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:৩৭, ২১ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৮:৩৯, ২১ জানুয়ারি ২০২০

তুরস্কে পড়াশোনার জন্য পূর্ণ বৃত্তি পাওয়া সম্ভব কি? বিমান খরচ, টিউশন, থাকা-খাওয়া, স্বাস্থ্যবীমা- সবকিছু বহন করে এমন কোন বৃত্তি?

তুরস্ক সরকারের পূর্ণ বৃত্তি নিয়ে ইস্তাম্বুল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছেন শাকিল রেজা ইফতি। তুরস্ক সরকারের বৃত্তি সম্পর্কে বিস্তারিত জানাচ্ছেন তিনি

 ১. আবেদন করতে পারবেন কারা?

এই বৃত্তি প্রোগ্রামটি তুরস্কের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও গবেষণা পর্যায়ে পড়ালেখা করতে চান এমন আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য।

সুতরাং আপনি যদি আপনার প্রতিষ্ঠানের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী হন এবং যে বছরে এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে চাচ্ছেন, সে বছরে আপনার প্রতিষ্ঠানের পড়ালেখা শেষ হয়, অথবা সেই প্রতিষ্ঠান থেকে আপনার পড়ালেখা যদি ইতোমধ্যে শেষ হয়ে থাকে, আপনি এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারেন। বয়সসীমা আছে অবশ্য একটা। ব্যাচেলরস প্রোগ্রামের জন্য ২১ বছরের নিচে, মাস্টার্সের জন্য ত্রিশের নিচে এবং পিএইচডির জন্য ৩৫ বছর বয়সের নিচে বয়স হতে হবে। সুতরাং আপনার বয়স এবং একাডেমিক যোগ্যতা যদি এসবের সঙ্গে মিলে যায়, আপনি এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারেন এবং একজন বিজয়ী হিসেবে উপভোগ করতে পারেন এর সুযোগ-সুবিধা।

২. কখন আবেদন করতে হয়?

শিক্ষার স্তর, অর্থাৎ স্নাতক নাকি স্নাতকোত্তর এবং দেশের ওপর ভিত্তি করে এই বৃত্তির আবেদন প্রক্রিয়া আগে তিনটি রাউন্ডে পরিচালিত হতো। ২০১৯ সাল থেকে বৃত্তি কর্তৃপক্ষ এটাকে একটি মাত্র রাউন্ডে পরিচালিত করছে। চলতি বছরে, অর্থাৎ ২০২০ সালের ১০ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি অবধি এই বৃত্তির জন্য আবেদন করা যাবে। সুতরাং যদি এই বৃত্তির জন্য আবেদন করার পরিকল্পনা থাকে, এখনই আপনার ডেস্কের ক্যালেন্ডারে এই তারিখটি দাগিয়ে রাখুন। কারণ আমি আগ্রহী বেশ কিছু শিক্ষার্থীকে দেখেছি, এই সময়সীমা সম্পর্কে না জানার জন্য শেষমেশ আবেদন করে উঠতে পারেননি। সুতরাং সময়টা নোট করে রাখার জন্য আপনাদের অনুরোধ করছি।

৩. একাডেমিক যোগ্যতা

এই বৃত্তির জন্য সর্বনিম্ন একাডেমিক যোগ্যতা নির্ধারিত করা আছে। ব্যাচেলরসের জন্য আবেদন করতে চাইলে ৭০ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। মাস্টার্স অথবা পিএইচডির জন্য ৭৫ শতাংশ এবং মেডিসিন অনুষদের জন্য কমপক্ষে ৯০ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। আপনার নম্বর যদি এই নির্ধারিত শতাংশের সঙ্গে না মেলে, আপনার কি হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত? উত্তর হলো, না! সব সময় অবশ্যই আপনার উচিত চেষ্টা চালানো। এমনও তো হতে পারে- আপনি আপনার মোটিভেশন লেটারে এমন কিছু একটা লিখেছেন, যেটা দেখে কর্তৃপক্ষ পছন্দ করেছে এবং আপনাকে ইন্টারভিউর জন্য ডেকেছে। বলা খুব কঠিন। তাই চেষ্টা করুন। চেষ্টা করতে তো দোষের কিছু নেই। অবশ্য সবসময় খুব ভালো নম্বর থাকা আপনার জন্যই ভালো। কারণ নম্বর যত ভালো, সুযোগ তত বেশি।

৪. আইইএলটিএস, টোফেল, স্যাটের মতো আন্তর্জাতিক স্কোর

এই স্কোরগুলোর প্রয়োজনীয়তা পুরোপুরি নির্ভর করে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাওয়া-না চাওয়ার ওপর। সুতরাং বিশ্ববিদ্যালয় তালিকা নির্ধারণ করার আগে অবশ্য সেগুলোর ওয়েবসাইট আলাদাভাবে দেখে নিতে হবে। আপনার আবেদন করতে চাওয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভাগ যদি এই আন্তর্জাতিক স্কোরগুলো চেয়ে থাকে, তবেই আপনার কাছ থেকে সেগুলো চাওয়া হবে। যদি আপনার তালিকার বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগে এই স্কোরগুলোর প্রয়োজনীয়তা না থাকে, তাহলে সেগুলোর দরকার হবে না। সুতরাং আপনি কোন বিভাগ এবং কোন অনুষদে আবেদন করছেন, সেটির ওপর নির্ভর করে এই আন্তর্জাতিক স্কোরগুলোর প্রয়োজনীয়তা যাচাই করুন।

৫. টোফেল নাকি আইইএলটিএস?

আমি নিশ্চিত, আপনাদের সবার মনেই এই প্রশ্ন। বিশেষ করে বিদেশে পড়ালেখার পরিকল্পনা করলে এই প্রশ্ন সবার আগেই আসে। টোফেল পরীক্ষা দেওয়া উচিত, নাকি আইইএলটিএস? তুরস্কের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে অনলাইন সার্চ থেকে জেনেছি, সব বিশ্ববিদ্যালয়ই টোফেল স্কোর গ্রহণ করে। কিছু বিশ্ববিদ্যালয় আইইএলটিএসও গ্রহণ করে। সুতরাং যতক্ষণ আপনি জানেন না কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করবেন, ততক্ষণ টোফেলই আপনার জন্য নিরাপদ। কারণ, সব বিশ্ববিদ্যালয়ই টোফেল গ্রহণ করে থাকে। সুতরাং টোফেল সবসময় আপনার জন্য নিরাপদ।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর