মঙ্গলবার ২৩ জুলাই, ২০১৯ ১০:৪২ এএম


জেএসসি-জেডিসিতে কমছে বিষয় ও নম্বর, থাকছে এমসিকিউ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:১৮, ৮ মে ২০১৮   আপডেট: ০৯:৫৩, ১০ মে ২০১৮

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় বিষয় ও নম্বর এ বছরই কমিয়ে আনা হচ্ছে। মঙ্গলবার আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়।

কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক জানান, এবার সাতটি বিষয়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কৃষি ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হবে না। আর পরীক্ষা হবে ৬৫০ নম্বরের।

তিনি আরো জানান, বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয়পত্র এবং ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয়পত্রের জন্য (উভয়পত্র মিলে) ১০০ করে ২০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। আগে বাংলা ও ইংরেজিতে ১৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেয়া হতো। গণিত, বিজ্ঞান, ধর্ম, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বিষয়ের জন্য ১০০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ৫০ নম্বরের পরীক্ষা হবে তথ্য প্রযুক্তিতে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এই প্রস্তাব অনুমোদন করলে এ বছরই তা বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে গত শনিবার (৫ মে) আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটির সভায় এই প্রস্তাব পাঠানোর ব্যাপারে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এছাড়া চলতি বছরের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় এমসিকিউ (মাল্টিপল চয়েজ কোয়েশ্চন) রেখে দেওয়ার ব্যাপারেও সভায় আলোচনা হয়েছে। এমসিকউ বাদ দিতে হলে ২০১৯ সালের পরীক্ষা থেকে বাদ দেওয়া যেতে পারে বলে মত দিয়েছেন বোর্ড চেয়ারম্যানরা।

নাম প্রকাশ না করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘এমসিকিউ পুরোপুরি তুলে দিতে হলে আগে শিক্ষাবিদদের সঙ্গে বসতে হবে। এর বিকল্প কী হবে তা ঠিক করতে হবে। এখন মে মাস চলছে। নভেম্বরে পরীক্ষা। মাত্র পাঁচ মাস আগে সিদ্ধান্ত নিয়ে তা শিক্ষার্থীদের উপর চাপিয়ে দিলে সমস্যা হতে পারে। এজন্য চলতি বছরের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় এমসিকিউ না থাকার সম্ভাবনা নেই

২০১৭ সালের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের ৮টি বিষয়ে ৮৫০ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়েছে। বাংলা প্রথমপত্র ১০০, দ্বিতীয়পত্র ৫০, ইংরেজি প্রথমপত্র ১০০, দ্বিতীয়পত্র ৫০, গণিত, ধর্ম, বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়, গার্হস্থ্য অর্থনীতি/কৃষি বিষয়ে ১০০ করে এবং তথ্য প্রযুক্তিতে ৫০ নম্বরসহ মোট ৮৫০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

২০১৭ সালের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় চারু ও কারুকলা, শারীরিক শিক্ষা ও কর্মমুখী শিক্ষা বাদ দেওয়া হয়েছিল। এবার বাদ দেওয়া হচ্ছে কৃষি ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান। আর বাংলা ও ইংরেজির দুই পত্র মিলে ৫০ নম্বর করে কমিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে। যেসব বিষয়ের লিখিত পরীক্ষা হবে না, সেসব বিষয়ের ধারাবাহিক মূল্যায়ন করবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর