রবিবার ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ১১:৩৭ এএম


জাপানী শিক্ষার্থীরা স্কুল পরিষ্কারের কাজ নিজেদেরই কেন করতে হয়? 

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১১:৫৯, ১০ জুলাই ২০১৮  

জাপানের শিক্ষার্থীরা নিজেদের স্কুল প্রাঙ্গন নিজেরাই পরিষ্কার রাখে। অনেক স্কুলে আলাদা করে কোনো কর্মী নেই পরিষ্কারের কাজ করার জন্য। থাকেও যদি, তারা প্রধানত সেই কাজগুলোই করে যেগুলো সাধারণত শিক্ষার্থীরা করতে সমর্থ নয়।

আমেরিকায় এই ধরণের কাজ শুরুতে চাইল্ড এ্যাবিউজ হিসেবে গণ্য করা হত। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারাও তাদের কারিকুলামে ‘পরিচ্ছন্নতা ক্লাস’ যুক্ত করার চিন্তা করছে, এবং অনেক স্কুলে চালুও হয়েছে।
জাপানে এই ‘পরিচ্ছন্নতা অভিযান ঘন্টা’ সরকারের পক্ষ থেকে বাধ্যতামূলক নয়, কিন্তু প্রায় প্রতিটি স্কুলই এটা তাদের সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে। কিন্তু কেন? জাপানের শিক্ষকরা বলেন, “শিক্ষার্থীরা এটা তাদের সিলেবাসের অংশ হিসেবে করবে না। করবে তাদের দায়িত্ববোধ থেকে। কোনো জায়গা তুমি ব্যবহার করছ মানে সেই জায়গা পরিষ্কার রাখার দায়িত্বও তোমার। ইটস সিম্পল!আমরা শুধু তাদের ছোটবেলা থেকে সেটা বিশ্বাস করতে এবং অনুশীলন করতে শেখাই।’’

মনোবিজ্ঞানীরা বলেন, দৈনিক এই পরিচ্ছন্নতা অনুশীলনের ফলে শিশুদের নিজেদের মধ্যে টিম ওয়ার্কের মানসিকতা গড়ে ওঠে। যে কোনো কাজকেই তারা সম্মানের চোখে দেখতে শেখে এবং সবচে’ বড় কথা হলো, পরবর্তীতে তারা দেশের দায়িত্বশীল নাগরিক হয়ে উঠতে পারে। তাছাড়া, প্রতিদিন কোনো জায়গা পরিষ্কারের দায়িত্ব যখন কারো ওপর বর্তায়, সে নিজ থেকেই সচেতন থাকে সে জায়গা কত কম অপরিচ্ছন্ন করা যায়।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে জাপানী শিক্ষার্থীরা ধুলো ঝাড়া-মোছা, সিঁড়ি পরিষ্কার, দরজা এবং জানালা পরিষ্কার ও মেঝে পরিষ্কার করে। অতি অল্প বয়েসী শিক্ষার্থীরা টয়লেট পরিষ্কারের কাজ করে না। তবে বড় হলে তাদেরও করতে হয়।
এই ‘পরিচ্ছন্নতা ঘন্টা’য় অংশ নেয়ার জন্য তাদের রয়েছে বিশেষ পোশাক, যা তারা স্কুল ইউনিফর্মের ওপর পরে নেয় কাজ শুরুর আগে। প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে প্রতিদিন বাড়ি থেকে এই পোশাক নিয়ে আসতে হয়।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর