বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:১৫ পিএম


ছাত্র সংসদের নামে 'ট্রাডিশনালি' ৩০ লাখ টাকা আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:৩০, ১৫ এপ্রিল ২০১৯  

জাতীয় সংসদে ২০০৯ সালে পাস হওয়া বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় আইনে ছাত্র সংসদের কোনো বিধান নেই। তবুও এক দশক ধরে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বেআইনিভাবে ছাত্র সংসদ বাবদ ফি আদায় করছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবিতে সোচ্চার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ও ছাত্র ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের নেতারা।

জানা গেছে, ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষ স্নাতক পর্যায়ে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীর কাছ থেকে জনপ্রতি আদায় করা হয়েছে ২০০ টাকা। আর দ্বিতীয় দফা স্নাতকোত্তর ভর্তির সময় আদায় করা হচ্ছে জনপ্রতি ১০০ টাকা। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক শাখা সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক পর্যায়ে ভর্তিকৃত সংখ্যা ১৩ হাজার ছাড়িয়েছে। স্নাতকোত্তর শেষ করেছে পাঁচ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী। আদায়কৃত অর্থের পরিমাণ ইতোমধ্যে ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে। ছাত্র সংসদ চালু না হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ইচ্ছা মাফিক এ অর্থ ব্যয় করছেন বলে অভিযোগ ছাত্র সংগঠনগুলোর।

সার্বিক বিষয়ে জানতে উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরে উপাচার্যের বরাত দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা দপ্তরের সহকারী পরিচালক তাবিউর রহমান প্রধান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় আইনে ছাত্র সংসদের বিধান নেই। তাই আইন সংশোধন বা এ বিধান সংযুক্ত করে ছাত্র সংসদ নির্বাচন নিয়ে প্রশাসন ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে।

আইন ছাড়া কীভাবে শিক্ষার্থীদের থেকে ছাত্র সংসদ বাবদ ফি আদায় করা হয়েছে জানতে চাইলে তাবিউর রহমান প্রধান বলেন, বিষয়টি ট্রাডিশনালি হয়ে আসছে। হয়ত পূর্ববর্তী প্রশাসন না বুঝেই ধারাবাহিক এ নামে ফি আদায় করেছে। তবে ছাত্র সংসদ নিয়ে বর্তমান প্রশাসন যথেষ্ট আন্তরিক।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর