রবিবার ২৪ মার্চ, ২০১৯ ৮:৪৩ এএম

Sonargaon University Dhaka Bangladesh
University of Global Village (UGV)

চেয়ারম্যান নেই বলে তাই বেতনও নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:০৪, ৩ মার্চ ২০১৯  

বেতন পাচ্ছেন না কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। স্বায়ত্তশাসিত এ প্রতিষ্ঠানে বিগত সময়ে মাসের প্রথম দিনে বেতন দেয়া হলেও গত এক মাস থেকে বোর্ডের চেয়ারম্যান না থাকায় কেউ বেতন পাচ্ছেন না। এমনটি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

বোর্ডের কর্মকর্তারা জানান, কারিগরি শিক্ষার একটি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা কারিগরি শিক্ষা বোর্ড (বিটিইবি)। এ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানের পদ গত এক মাস ধরে খালি হয়ে আছে। গত ৪ ফেব্রুয়ারি বিটিইবি’র সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান অবসরে যান। এখন পর্যন্ত ওই পদে কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়নি।

চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাবদ অর্থ তোলা সম্ভব না হওয়ায় মাস শেষ হয়ে আরেক মাস আসলেও এখনও কেউ বেতন পাননি।

তারা বলেন, কারিগরি বোর্ডে মোট ১১৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন। তার মধ্যে ৭৮ জন কর্মকর্তা ও ৪০ জন কর্মচারী রয়েছেন। আইন অনুযায়ী, চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর ছাড়া বেতন তোলা যায় না, এ কারণে বেতনের অর্থ তুলতে ফাইল পাস না হওয়ায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

শুধু তাই নয়, চেয়ারম্যান ছাড়া বোর্ডের সব সিদ্ধান্ত, নীতিনির্ধারণ ও অর্থ সংক্রান্ত কোনো ফাইল পাস না হওয়ায় স্বাভাবিক কার্যক্রম বিঘ্নিত হচ্ছে। প্রায় অচল অবস্থা শিক্ষা বোর্ডের সার্বিক কার্যক্রমে। বর্তমানে চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে সব কাজ চালিয়ে নিচ্ছেন বোর্ডের সচিব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সচিব মাহাবুবুর রহমান বলেন, চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি মন্ত্রণালয়ের ওপর ন্যস্ত। সেখানে আমাদের কিছু করার থাকে না। চেয়ারম্যান না থাকায় আমাকে বোর্ডের কার্যক্রম চালিয়ে নিতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ফাইলে চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর ছাড়া অর্থ তোলা যায় না। তাই এ পদটি শূন্য থাকায় বোর্ডের বেতন পাস করা সম্ভব হচ্ছে না। বিষয়টি আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জানিয়েছি। দ্রুত এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে আশ্বাস দেয়া হয়েছে।

এদিকে চেয়ারম্যান ছাড়া সব কার্যক্রম স্থবির থাকলেও আগামী ১৪ মার্চ কারিগরি বোর্ডের শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ) নির্বাচনের সময় ঘোষণা করা হয়েছে। বর্তমানে নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে। নির্ধারিত দিন ভোটগ্রহণ কার্যক্রম শেষ হবে। তবে বোর্ডের চেয়ারম্যান ছাড়াই তড়িঘড়ি করে সিবিএ নির্বাচন আয়োজন নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বোর্ডের এক কর্মকর্তা জানান, চেয়ারম্যান ছাড়া কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব না হলেও, কর্মচারী ইউনিয়নের নির্বাচন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। কারিগরি বোর্ডের ইতিহাসে আগে কখনও এমন ঘটনা ঘটেনি। বর্তমান সচিবের একক সিদ্ধান্তে এ নির্বাচনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে সচিব মাহাবুবুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনের জন্য একক অনুমোদন দেয়ার আমি কেউ না। তারা (শ্রমিক নেতৃবৃন্দ) ট্রেড ইউনিয়ন থেকে অনুমোদন নিয়ে এসেছে। এ কারণে আমি নির্বাচনের জন্য সম্মতি দিয়েছি।

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর