বৃহস্পতিবার ২২ আগস্ট, ২০১৯ ০:০৭ এএম


চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন কাজে ধীরগতি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:২৬, ২৭ জানুয়ারি ২০১৯  

ধীরগতিতে চলছে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কাজ। দেশের একমাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যলয়। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চট্টগ্রাম ও রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন দেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ২৪ একর ভূমি প্রদান করা হয়েছে। ভূমি পেলেও নানা কারণে দৃশ্যমান হচ্ছে না এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন কাজ। বর্তমানে ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি (বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস) ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অস্থায়ী কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া এমবিবিএস শিক্ষার্থীরা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে রয়েছেন। আগামী মে মাসে এসব শিক্ষার্থী প্রথম ব্যাচের পরীক্ষায় অংশ নেবে। কিন্তু ক্যাম্পাস স্থাপন কাজ দৃশ্যমান না হওয়ায় এ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্প কত দিনে বাস্তবায়ন হবে, তা নিয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্টরা।

দুই বছর আগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাসের মাধ্যমে দুটি প্রতিষ্ঠান স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার; যার একটি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। এর অধিভুক্ত ২৬টি ইন্সটিটিউশন রয়েছে। এগুলোর মধ্যে মেডিকেল কলেজ, ডেন্টাল, নার্সিং, টেকনোলজি, আয়ুর্বেদিক ও অপটিমেট্রিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব পালন করবে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। এরপরও শম্বুকগতিতে চলছে প্রকল্পের কাজ- এমন অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের। এর আগে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত মেডিকেল শিক্ষার্থীদের দায়িত্ব চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঁধে ছিল। মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের শেষদিকে জাতীয় সংসদে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাস হয়। প্রধানমন্ত্রী দ্রুতগতিতে প্রকল্প বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেন।

পরের বছর মে মাসে ভিসি নিয়োগের মাধ্যমে শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম। তবে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়টি কোথায় স্থাপিত হবে এ নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা ছিল। সবশেষে শহরের কাছাকাছি ফৌজদারহাট এলাকায় বর্তমানে অবস্থিত বিআইটিআইডি (বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস) সংলগ্ন জায়গায় ভূমি অনুমোদনের পর এ ধোঁয়াশা কাটে। মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইনানুযায়ী ২৬টি ইন্সটিটিউশনের তদারকির দায়িত্বে রয়েছে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। এর মধ্যে ৬টি সরকারি, ১০ বেসরকারি মেডিকেল কলেজ, ২টি ডেন্টাল, নার্সিং, টেকনোলজি, আয়ুর্বেদিক ও অপটিমেট্রিক টেকনোলজিস্ট চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত ও সনদ প্রদান করা হবে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে। তবে যে লক্ষ্যে এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা, সেটি বাস্তবায়ন হবে স্থাপনার কাজ শেষ হলে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিন্ডিকেট সদস্যদের মধ্যে একজন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতা থাকা সত্ত্বেও ধীরগতিতে চলছে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কাজ। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অনুমোদন দেয়া ভূমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। তাই অধিগ্রহণ জটিলতা নেই। এরপরও কেন ধীরগতি, তা বলা মুশকিল। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে গণপূর্ত অধিদফতর। গত বছরের জুলাই মাসে সিন্ডিকেট সদস্যদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল বলে জানান তিনি।

এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর