শুক্রবার ২৪ মে, ২০১৯ ১৯:৪৬ পিএম


ঘুরে দাঁড়াচ্ছে মাদরাসা বোর্ড, বেড়েছে পাসের হার ও জিপিএ-৫

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫:৩৫, ৬ মে ২০১৯   আপডেট: ১৫:৫৪, ৬ মে ২০১৯

গত কয়েক বছর ধরে দাখিলের ফলাফলে ক্রমেই পেছাচ্ছিল মাদরাসা বোর্ড। গত ৪ বছর ধরে কমছিল পাসের হার। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রেও বেকায়দায় ছিল মাদরাসা বোর্ড। এবার এসএসসি ও সমমানের ফলের প্রায় সব সূচকেই মাদরাসা বোর্ডের ঊর্ধ্বগতি। পাসের হার যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও। যেন ঘুরে দাঁড়াচ্ছে মাদরাসা বোর্ড।


ফলাফল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, গত বছরের তুলনায় এবার মাদরাসা বোর্ডের অধীনে দাখিলে পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে মাধ্যমিকের সার্বিক ফলেও। এবার দাখিলে পাসের হার ১২ দশমিক ১৪ শতাংশ ও জিপিএ-৫ এর সংখ্যা ২ হাজার ৯১৬ জন বেড়েছে।

আরও পড়ুন: এসএসসি ও সমমানে জিপিএ-৫ এবং পাশে এগিয়ে মেয়েরা

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে আজ সোমবার। শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে ২০১৯ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন।

ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী, এবার গড় পাসের হার ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ। গত বছর গড় পাসের হার ছিল ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। এবার পাসের হার ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ বেড়েছে।


মাদরাসা বোর্ডে পাসের হার ৮৩ দশমিক ০৩ শতাংশ। ফলাফলের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত বছর দাখিলে পাসের হার ছিল ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ। ২০১৭ সালে ৭৬ দশমিক ২০ শতাংশ, ২০১৬ সালে ৮৮ দশমিক ২২ শতাংশ ও ২০১৫ সালে ছিল ৯০ দশমিক ২০ শতাংশ।

এবার দাখিলে ৬ হাজার ২৮৭ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেলেও গত বছর এ সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৩৭১ জন। মোট পরীক্ষার্থীর মাত্র ২ দশমিক ০৫ শতাংশ জিপিএ-৫ পেয়েছে। গত বছর মোট শিক্ষার্থীর ১ দশমিক ১৭ শতাংশ জিপিএ-৫ পেয়েছিল।

২০১৭ সালে দাখিলে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ২ হাজার ৬১০ জন শিক্ষার্থী। মাদরাসা বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২০১৬ সালে ছিল ৫ হাজার ৮৯৫ জন, ২০১৫ সালে ১১ হাজার ৩৩৮ জন ছিল।

মাদরাসা বোর্ডের অধীনে দাখিল পরীক্ষায় এবার ৩ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে ২ লাখ ৫৪ হাজার ৭১০ জন পাস করেছে।

এডুকেশন বাংলা/একে

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর