সোমবার ২৫ মে, ২০২০ ২০:৩৪ পিএম


ঘরেই শিশুর সর্দি-কাশির চিকিৎসা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:১৭, ১ এপ্রিল ২০২০  

করোনা পরিস্থিতির এই সময়ে শিশুর সামান্য জ্বর, ঠাণ্ডা, হাঁচি-কাশি হলে চিকিৎসকের চেম্বারে বা হাসপাতালে যাওয়ার তেমন প্রয়োজন নেই। সেখানে গেলে বরং অন্যদের থেকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে অথবা অন্যরা আক্রান্ত হতে পারে। তাই ভালো পরামর্শ হলো, নিজ বাসায় অবস্থান করা এবং ঘরে থেকেই কিছু সাধারণ চিকিসাব্যবস্থা নেওয়া।

 

জ্বর ঠাণ্ডা হাঁচি-কাশির চিকিৎসা

সিরাপ : Napa/Ace/Reset/Fast/Renova

 

মাত্রা : শিশুর ওজন প্রতি ১০ কেজির জন্য ১ চামচ করে রোজ ৪ বার দিন (যদি জ্বর ১০০ ডিগ্রির ওপরে ওঠে)।

 

সাপোজিটরি : Napa/Ace/Renova/Fast

 

মাত্রা : শিশুর ওজন ১০ কেজির জন্য ১২৫ মি.গ্রা মলদ্বারে দিন (যদি জ্বর ১০২-এর ওপরে ওঠে)।

স্পঞ্জ : হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে সারা শরীর মুছতে থাকুন যতক্ষণ পর্যন্ত জ্বর না কমে।

সিরাপ : Fenadin/Fexo/Fenofex/Fexofast

 

মাত্রা : ৬ মাস থেকে ২ বছর পর্যন্ত : আধা চামচ দিনে একবার বা দুবার দিন।

২ বছর থেকে ৬ বছর পর্যন্ত : ১ চামচ করে দিনে ২ বার দিন।

৬ বছর থেকে ১২ বছর পর্যন্ত : ১ বা ২ চামচ করে দিনে ২ বার দিন।

১২ বছরের ওপরে হলে : Tablet Fexo/Dinafex/Axodin (120 mg)

০+০+১ হিসেবে দেবেন।

 

ড্রপস : Afrin/Rynex Nasal drop (০.০২৫%)

মাত্রা : ১/২ ফোঁটা করে ২ নাকের ছিদ্রে দিনে ৩ বার দিন।

 

এগুলো সব OTC ড্রাগ। চাইলে নিজেই কিনে খাওয়াতে পারবেন ফার্মেসি থেকে। তেমন কোনো সাইডইফেক্টও নেই। মনে রাখবেন, সাধারণ ঠাণ্ডা, কাশি ও সর্দি এমনিতেই ৫-৭ দিনে সেরে যায়। রোগ যাতে না ছড়ায় সেদিকে খেয়াল রাখুন, রোগ প্রতিরোধ করুন। ৫-৭ দিন পরেও উপসর্গগুলো না কমলে তখন চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

 

মেনে চলুন

► শিশুদের নিয়ে সব সময় ঘরে অবস্থান করুন।

► হাত ধোন এবং শিশুদেরও অভ্যাস করান।

► এই সময় বেশি পানি পান করান।

► ফলমূল বা ঘরে তৈরি জুস খাওয়ান।

► হ্যান্ডশেক, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।

► পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন।

পরামর্শক:ডা. দেলোয়ার হোসেন মোল্লা বিভাগীয় প্রধান, শিশুরোগ বিভাগ সাহাবুদ্দিন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল



এডুকেশন বাংলা/এজেড

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর