মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৪:৪১ পিএম


কারাগারে সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগ দিতে বিধিমালা

এম বদি-উজ-জামান

প্রকাশিত: ১০:০৫, ২২ ডিসেম্বর ২০১৯  

সারা দেশে কারাগারগুলোতে দীর্ঘদিনের চিকিৎসক সংকট দূর করতে সরকারের পাশাপাশি কারা কর্তৃপক্ষও আলাদাভাবে উদ্যোগ নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে কারা কর্তৃপক্ষ সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগ দিতে একটি বিধিমালার খসড়া তৈরি করেছে।

কারা বিভাগ ‘সুরক্ষা সেবা বিভাগের ডাক্তার নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯’ নামে করা এই বিধিমালা অনুমোদনের জন্য এরই মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দাখিল করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এই খসড়া বিধিমালার একটি কপি হাইকোর্টেও দাখিল করেছে কারা কর্তৃপক্ষ।

এই বিধিমালা সরকার অনুমোদন করলে কারা কর্তৃপক্ষ তাদের চাহিদামতো সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগের সুযোগ পাবে। এর বাইরেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে চিকিৎসক পাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কারা কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা বলেন, কারাগারে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকট দীর্ঘদিনের। এই সংকট দূর করতে কারা কর্তৃপক্ষ বারবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে; কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

তিনি আরো বলেন,বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরেও আনা হয়েছে। এরপর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কারা হাসপাতাল, পুলিশ হাসপাতাল, বিজিবি হাসপাতাল এবং আনসার ও ভিডিপি হাসপাতালে চিকিৎসক সরবরাহ করতে একটি মেডিক্যাল ইউনিট গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই ইউনিট ‘ডাক্তার পুল’ হিসেবে বিবেচিত হবে। যখন যে হাসপাতালের জন্য যতজন চিকিৎসক প্রয়োজন হবে তা সেখান থেকে সরবরাহ করা হবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রতিনিয়ত মারাত্মক সমস্যা মোকাবেলা করছি। এ কারণেই দ্রুত চিকিৎসক পাওয়ার জন্য একটি নিয়োগ বিধিমালা করা হয়েছে। সরকারের অনুমোদন পেলেই শুধু এই বিধিমালার আলোকে কারা কর্তৃপক্ষ সরাসরি ডাক্তার নিয়োগ করতে পারবে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ১৩টি কেন্দ্রীয় কারাগার ও ৫৫টি জেলা কারাগার মিলে সারা দেশে সর্বমোট ৬৮টি কারাগার রয়েছে। সব কারাগারেই একটি করে হসাপাতাল রয়েছে। বর্তমানে এসব হাসাপাতালে রোগীর ধারণক্ষমতা দুই হাজার ২১২ জন; কিন্তু কারাগুলোতে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি কারাবন্দি রয়েছে।

ফলে কারা হাসপাতালগুলোতেও বন্দি রোগীর চাপ বেশি; কিন্তু দিন দিন কারাগারে চিকিৎসকের সংখ্যা কমছেই। যেখানে ১৪১ জন চিকিৎসকের পদ অনুমোদিত রয়েছে, সেখানে আছেন মাত্র আটজন চিকিৎসক।

কারাগারে সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগের বিধান না থাকায় কারা কর্তৃপক্ষ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে চিকিৎসক চেয়ে আসছে। এ জন্য গত সাড়ে আট বছরে ৩৪ বার চিঠি দিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ; কিন্তু কাজের কাজ না হওয়ায় চিকিৎসক না পেয়ে সরকারি চিকিৎসক নিয়োগের জন্য বিধিমালা তৈরি করেছে তারা।

কারাগারে পর্যাপ্ত চিকিৎসক না থাকায় হাইকোর্টে পৃথক দুটি রিট আবেদন করা হয়েছে, যা এখন বিচারাধীন। রিট আবেদনকারী অ্যাডভোকেট জে আর খান রবিন বলেন, কারাগারে চিকিৎসক সংকটের কথা জানতে পারি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে।

তিনি বলেন, ‘কারাবন্দিরা অসুস্থ হলেও তারা বাইরে গিয়ে ডাক্তার দেখাতে পারে না। তাদের কারাগারের চিকিৎসকের কাছেই যেতে হয়; কিন্তু কারাগারে চিকিৎসক নেই বা খুবই অপ্রতুল। ফলে বন্দিরা চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বন্দিদের মানবিক দিক বিবেচনা করে আমি একটি রিট আবেদন করি।’ কালের কণ্ঠ



সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর