শুক্রবার ১০ জুলাই, ২০২০ ২:৩০ এএম


করোনা ও অন্য জ্বরের মধ্যে পার্থক্য

ডা. শহীদুল ফেরদৌস

প্রকাশিত: ০৭:০২, ৫ জুন ২০২০  


ভাইরাল ফিভার বা ভাইরাসজনিত জ্বর অনেক ধরনের হতে পারে এবং সবগুলোই বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস থেকে হয়।

ভাইরাল ফিভার বা ভাইরাসজনিত জ্বর অনেক ধরনের হতে পারে এবং সবগুলোই বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস থেকে হয়। কোভিড-১৯ও এক ধরনের ভাইরাল ইনফেকশন। তাই অন্যান্য ভাইরাল ফিভারের সঙ্গে এর অনেক মিল আছে। এখানে খুব সংক্ষিপ্তভাবে তা নিয়ে আলোচনা করব।

১. যদি কারও জ্বর হয়, সেই সঙ্গে বেশ পরিমাণ গা ব্যথা, মাথা ব্যথা থাকে, নাক দিয়ে পানি না পড়ে, হাঁচি-কাশি না হয় এবং তিন থেকে পাঁচ দিন পর মুখের চার পাশে ঘায়ের মতো হয়, তাহলে বুঝতে হবে এ ধরনের ভাইরাল ফিভার হয় Herpes HSV1 ভাইরাসজনিত কারণে। এটি দেশে খুব কমন একটি জ্বর।

২. আরেক ধরনের ভাইরাল ফিভার আছে, যেটাকে কমন কোল্ডও বলে, এর লক্ষণগুলো এরকম: অল্প জ্বর বা গা একটু গরম, নাক দিয়ে প্রচুর পানি পড়বে, নাক বন্ধ হবে, প্রচুর হাঁচি-কাশি হবে, গা ব্যথা, গলা ব্যথা থাকবে, কয়েক দিন পর কফ ঘন হয়ে হলুদ হয়ে যাবে।

এ ধরনের ভাইরাল ফিভারকে কমন কোল্ড বলে, Rhino virus, respiratory syncytial virus, picorna virus এরকম প্রায় ২০০ রকমের ভাইরাস থেকে এই ইনফেকশন হয়। একে viral upper respiratory infectionও বলা হয়।

৩. Flu বা Influenza হয় Influenza ও Parainfluenza virus থেকে। এর লক্ষণগুলোও অনেকটাই কমন কোল্ডের মতোই, তবে তীব্র মাত্রার। ফ্লুতে শুকনো কাশি হয়, হাঁচি হয় না, ডায়রিয়া-বমি হয় অনেক ক্ষেত্রে। ৪. কোভিড-১৯ বা নোভেল করোনাভাইরাস ইনফেকশনের যে প্রাথমিক লক্ষণ, তার সঙ্গে অন্য ভাইরাল ফিভারের অনেক মিল আছে।

উপরে উল্লেখিত মোটামুটি সব লক্ষণই থাকবে, তবে বাড়তি যে লক্ষণটা থাকবে সেটা হল শুকনো কাশি ও শ্বাসকষ্ট। হাঁচি থাকবে না, নাকও বন্ধ থাকবে না এ ক্ষেত্রে। বুকে ব্যথা হতে পারে, শরীর খুব দুর্বল হবে, কথা বলতে কষ্ট হবে।

মনে রাখতে হবে, কোভিড-১৯-এর প্রাথমিক লক্ষণ অন্য ভাইরাল ফিভারের মতো হলেও এটা খুবই মারাত্মক রোগ, মৃত্যুর ঝুঁকিও বেশি। তাই যাদের দেহে এ ধরনের লক্ষণ দেখা দেবে, তাদের প্রতি পরামর্শ হল- দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ডা. শহীদুল ফেরদৌস : যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী চিকিৎসক

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর