সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৬:২৪ পিএম


এসিটিদের এমপিও কেন অবৈধ হবেনা? জানতে চাই

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৮:২০, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  

লোকমান হোসেন নামের একজন তার ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ইন্টারভিউ ছাড়া, নিবন্ধন ছাড়া, প্যাটার্নের বাইরে ও রিকুইজিশন ছাড়া এসিটিদের এমপিও কেন অবৈধ হবেনা? জানতে চাই।

তার এই স্ট্যাটাসের জবাবে শরিফুল ইসলাম নামের একজন এসিটি শিক্ষক কমেন্ট বক্সে লিখেছেন, সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের(sedp) আওতায় সেকায়েপ ও সেসিপ প্রকল্পের নিয়োগ প্রাপ্তশিক্ষকদের স্ব স্ব প্রতিষ্টানে পদ সৃষ্টি করে বিশেষ এমপিও দিবে সরকার। আর শূন্য পদেএনটিআরসিএ`র সুপারিশ ছাড়া নিয়োগের অনুমতি না থাকায় সেখানে কোনো সেকায়েপ ফেকায়েপের নিয়োগ হবে না,সে ক্ষমতা এখন কারো নেই।এই শূন্য পদে নিয়োগ হবে শুধুমাত্র নিবন্ধিতদের যা খুব দ্রুত শুরু হবে। আর সেকায়েপের প্রকল্পের শিক্ষকদের এমপিও প্রোগ্রামের আওতায় করতে এখনো অনেক সময় লাগবে। আর শিক্ষা মন্ত্রীও জাতীয় সংসদে বলেছিলেন আগে পদ সৃষ্টি করা হবে তার পর সেই পদে প্রকল্পের শিক্ষকদের নিয়োগ হবে।বিশ্ব ব্যাংক প্রোগ্রামের টাকা দিয়েছে (বিশ্ব ব্যাংকের ওয়েব সাইটে wb projects in bangladeshএই সাইটে ঢুকে সাম্প্রতিক তথ্য দেখুন) তাই এই শিক্ষকের এমপিও করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আগে এমপিও ছাড়া এদের ২৫০০০ এর উপরে বেতন দেওয়া হতো তাই এমপিও করা মানে এদের বেতন কমানোর কৌশল নিয়েছে সরকার।

এটা প্রকল্প থেকে এমপিও যা উন্নয়ন বিভাগের কাজ,এর সাথে বে সরকারী শিক্ষক এমপিও এর কোনো সম্পর্ক নেই।সেকায়েপে যারা আছে তাদের এমপিও হলে কিছু প্রতিযোগী কমবে কারন প্রকল্পের এই শিক্ষকদরও নিবন্ধন আছে।এরা সবাই সাম্প্রতিক পাশ করা মেধা তালিকার উপরের দিকে থাকা জব প্রত্যাশী। তাই এদের এমপিও করন নিয়ে যে সকল নিবন্ধিতরা বেজার হচ্ছে তারা হয় হিংসা থেকে অথবা রিট বাণিজ্যের ধান্দা থেকেই এটা করছে।

উল্লেখ্য, সেকেন্ডারি এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড অ্যাক্সেস এনহ্যান্সমেন্ট (সেকায়েপ) এবং সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের (সেসিপ) আওতায় নিয়োগকৃত অতিরিক্ত শ্রেণিশিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়ে গত ১১ জুলাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সেকায়েপ ও সেসিপ প্রকল্পের শিক্ষকদের এমপিওভুক্তিকরণের সম্ভাব্য শর্তাবলি ও আর্থিক সংশ্লেষসহ একটি পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাব নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। ওই সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে গত ২৮ আগস্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে একটি চিঠি দেয়া হয়। চিঠিতে সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রকল্প দুটির নিয়োগকৃত শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির সম্ভাব্য শর্তাবলি ও আর্থিক সংশ্লেষসহ একটি পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর