মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর, ২০২০ ৩:০২ এএম


এসএসসির ফল প্রকাশ নিয়ে যা বললেন ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৩:১৮, ৫ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ২৩:২০, ৫ এপ্রিল ২০২০

সব পরিস্থিতি বিবেচনা করে এবারের এসএসসির ফল প্রকাশে বিলম্ব হতে পারে জানিয়ে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পর ফলাফল প্রস্তুত করতে অন্তত ২০ দিন সময় লাগবে।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এম এম আমিরুল ইসলাম রোববার রাতে বলেন, “এসএসসির ফলাফল নিয়ে আমরা কাজ করছি। তবে সব কিছুই নির্ভর করবে পরিস্থিতির উপর।”

এদিকে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইলে এসএমএস করে পাঠাবে যশোর শিক্ষা বোর্ড।

কেন্দ্রীয়ভাবে ফল প্রকাশের পর শিক্ষার্থীদের সরবরাহকৃত মোবাইল নম্বরে তাদের মাধ্যমিকের ফল বিনা খরচে পৌঁছে যাবে বলে যশোর বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানিয়েছেন।

তিনি রোববার রাতে বলেন, “এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকের মোবাইল নম্বর যশোর বোর্ডের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপলোড করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

“আমরা আমাদের বোর্ডের ওয়েবসাইটের ইনস্টিটিউট প্যানেল ওপেন রেখেছি। ইআইআইএন ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইল নম্বরগুলো এন্ট্রি করতে পারবে।”

আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের এসএসসি শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইল নম্বর এন্ট্রি করতে যশোর বোর্ডের আওতাধীন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ও প্রধান শিক্ষকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান অধ্যাপক রুদ্র।

তিনি বলেন, বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইল নম্বর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে রয়েছে। এরপরেও কোনো শিক্ষার্থীর অভিভাবকের মোবাইল নম্বর না থাকলে ওই শিক্ষার্থী যে মোবাইল নম্বর সরবরাহ করবে সেটিতেই ফল পাঠানো হবে।

“যদি শতভাগ শিক্ষার্থীর অভিভাবকের মোবাইল নম্বর না-ও পাওয়া যায়, আমরা যতজনের পাব ততজনের ফলই ওই নম্বরে পাঠাব।”

সাধারণত কেন্দ্রীয়ভাবে ফল প্রকাশের পর যে কোনো মোবাইল অপারেটর থেকে এসএমএস করে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল জানা যায়। এছাড়া শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট থেকেও পরীক্ষার্থীরা ফল জানতে পারেন।

বেশ কয়েক বছর ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকে ফলাফল ডাউনলোড করতে পারে। বোর্ড থেকে ফলাফলের কোনো হার্ডকপি সরবারহ করা হয় না। তবে বিশেষ প্রয়োজনে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর থেকে ফলাফলের হার্ডকপি সংগ্রহ করা যায়।

অধ্যাপক রুদ্র বলেন, “ফলাফল প্রকাশের এসব ব্যবস্থার সবগুলোই আগের মতোই থাকছে। আমরা আমাদের বোর্ডের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইলে বিনামূল্যে ফল পাঠিয়ে তাদের একটু স্পেশাল সুবিধা দিতে যাচ্ছি।”

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক জানান, শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইলে এসএমএস করে ফল পাঠানোর কেন্দ্রীয় কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

যশোর বোর্ড ছাড়া অন্য কোনো বোর্ড এমন উদ্যোগ নেয়নি বলেও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে।

এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন।

গত কয়েক বছর ধরে পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে এসএসসির ফল ঘোষণা করা হয়। সেই হিসেবে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে মাধ্যমিকের ফল ঘোষণার কথা রয়েছে।

সব খবর
এই বিভাগের আরো খবর